বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের একটি অফিস ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

মুম্বাইয়ের ওই অফিস ভাঙার ওপর মুম্বাই হাইকোর্ট বুধবার দুপুরে স্থগিতাদেশ জারি করে; তার আগেই স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এই ভাংচুর চালায়।

এর আগে সকালে পালি হিলে কঙ্গনার মণিকর্ণিকা ফিল্মসের অফিস ভাঙার কাজ শুরু করে বৃহন্মুম্বাই পৌরসভা।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, অফিস ভাঙার নির্দেশনার ওপর স্থগিতাদেশের পাশাপাশি মুম্বাই পৌরসভার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আদালতে কঙ্গনা যে আবেদন জমা দিয়েছিলেন পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে তার জবাব দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মুম্বাই হাইকোর্ট জানায়, বৃহন্মুম্বাই পৌরসভাকে অবিলম্বে কঙ্গনার সম্পত্তি ভাঙার কাজ বন্ধ করতে হবে।

কঙ্গনার আইনজীবী রিজওয়ান সিদ্দিকি  জানান, কর্তৃপক্ষকে বৃহস্পতিবার বেলা ৩টার মধ্যে অভিনেত্রীর পিটিশনের জবাব দিতে বলা হয়েছে। সেই সময় বিচারপতি এসজে কাথাওয়াল্লার বেঞ্চে এই মামলার শুনানি ফের শুরু হবে।

তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়ের আগেই জবাব দিয়েছিলাম। বুধবার আমাদের জবাব খারিজ করে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। অথচ তার আগেই তারা অফিস ভাঙতে চলে এসেছিল। আমরা দ্রুত হাইকোর্টে পিটিশন দাখিল করি। আদালত দুপুর সাড়ে ১২টায় আমাদের আবেদনের শুনানি মঞ্জুর করে। সেই তথ্য আমরা কর্তৃপক্ষকে জানাই।

সূত্র জানায়, কঙ্গনার এই অফিসে বেশ কিছু কাঠামোগত নিয়ম লঙ্ঘন করা হয়েছে বলে অভিযোগ। মঙ্গলবার এ নিয়ে নোটিশ জারি করেছিল বৃহন্মুম্বই পৌরসভা। ২৪ ঘন্টার মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছিল কঙ্গনার কাছে। সেই জবাবও পাঠিয়েছিলেন কঙ্গনা। তবে অভিনেত্রীর জবাবে সন্তুষ্ট নয় কর্তৃপক্ষ। তাই বুধবার কঙ্গনার মুম্বাই ফেরার কয়েক ঘন্টা আগেই কঙ্গনার অফিসে হাজির হয় কর্তৃপক্ষ। পৌঁছায় মুম্বই পুলিশের বিশাল বাহিনী। শুরু হয় অফিস ভাঙার কাজ। এদিন দুপুর ১টার দিকে সেই কাজ শেষ করে বেরিয়ে যায় পৌরসভা কর্তৃপক্ষ।

কঙ্গনার দাবি তার অফিসে কোনওরকম বেআইনি নির্মাণ ছিল না। বৃহন্মুম্বই পৌরসভা কোনও নিয়ম ভাঙেননি তিনি। কঙ্গনার অফিস গুঁড়িয়ে দেওয়ার কাজের একটি ছবি টুইট করে কঙ্গনা লেখেন, 'আমি ভুল ছিলাম না। এবং আমার শত্রুরা আবারও প্রমাণ করে দিল সেটা। এই কারণে আমার মুম্বই এখন পাক অধিকৃত কাশ্মীর হয়ে গেছে'।

আরও একটি ছবি টুইট করে কঙ্গনা লেখেন, পাকিস্তান…গণতন্ত্রের অপমৃত্যু। পাক অধিকৃত কাশ্মীরের সঙ্গে মুম্বাইয়ের তুলনার জেরে মহারাষ্ট্র সরকারের রোষের মুখে পড়েন কঙ্গনা। প্রকাশ্যে কঙ্গনার ওপর হামলার হুমকি দেন রাজ্যে ক্ষমতাসীন দলের নেতা। এরপর কেন্দ্রের পক্ষ থেকে 'ওয়াই' ক্যাটাগরির নিরাপত্তা দেওয়া হয় কঙ্গনাকে। সেই নিরাপত্তা বেষ্টনীর মাঝেই মুম্বাই ফিরছেন নায়িকা। তবে কঙ্গনার মুম্বাই ফেরার কয়েক ঘন্টা আগেই গুঁড়িয়ে দেওয়া হল তার অফিস। সূত্র: আনন্দবাজার, হিন্দুস্তান টাইমস, নিউজএইটটিন