শহরে নতুন গোয়েন্দা

প্রকাশ: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০     আপডেট: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০   

আসাদুজ্জামান

এবার শহরে আসছে আরেক দুর্ধর্ষ গোয়েন্দা। যে টেক্কা দেবে শার্লক হোমসকেও। সে আর কেউ নয়, স্বয়ং শার্লক হোমসের ছোট বোন। নাম ইনোলা হোমস। এ নামেই নির্মিত হয়েছে চলচ্চিত্র। এখানে তুলে ধরা হয়েছে ইলোনার একক অ্যাডভেঞ্চারের কিছু মুহূর্ত। সেখানে ইনোলার কিছু ব্যাক স্টোরি তুলে ধরা হয়েছে। তিনি জানান, তার নামের রহস্য ও মায়ের সঙ্গে সম্পর্কের নানা পরত।

ইনোলার জীবনের প্রেক্ষাপটের সঙ্গে মা ও বিখ্যাত গোয়েন্দা ভাইয়ের সঙ্গে সম্পর্কটাও তুলে ধরা হয়েছে ছবিতে। একসময় ইনোলার মা হারিয়ে যান। মাকে খুঁজতে শুরু করেন ইলোনা। এরপর ঘটে নানা ঘটনা। এই চরিত্রে অভিনয় করেছেন- 'স্ট্র্যাঞ্জার থিংস' ও 'গডজিলা' খ্যাত তারকা অভিনেত্রী মিলি ববি ব্রাউন। মাত্র ১৬ বছর বয়সী এই তরুণী অভিনয়ে একের পর চমক উপহার দিচ্ছেন। ১৩ বছর বয়সে এমি অ্যাওয়ার্ড নমিনেশনের মধ্য দিয়ে ব্রিটিশ এই তারকা সুনাম কুড়িয়েছেন দর্শক ও সমালোচকদের। এবার 'ইনোলা হোমস' ছবির মধ্য দিয়ে রহস্যঘেরা শার্লক হোমসের ছোট বোনের চরিত্রে নেটফ্লিক্সে ফিরেছেন মিলি ববি ব্রাউন। আমেরিকান জনপ্রিয় লেখক ন্যানসি স্প্রিংগারের এনোল হোমস উপন্যাস অবলম্বনে হ্যারি ব্র্যাডবির নির্মাণ করেছেন রহস্যঘেরা এই চলচ্চিত্র। ফিলিবাগ এবং কিলিং ইভের পর জনপ্রিয় ব্রিটিশ চলচ্চিত্র এবং টেলিভিশন পরিচালক হ্যারি ব্র্যাডবিরের এবারের নিবেদন 'ইনোলা হোমস'।

গত মাসের শেষে টানটান উত্তেজনা আর রোমাঞ্চে ভরপুর ছবিটির ট্রেলার প্রকাশের পর থেকে সিনেমাপ্রেমীদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। গতকাল নেটফ্লিক্সে মুক্তির মধ্য দিয়ে অপেক্ষার পালা শেষ হলো। ছবিতে ইলোনার দুই ভাই শার্লক হোমস চরিত্রে হেনরি ক্যাভিল ও মাইক্রফট চরিত্রে স্যাম ক্লাফ্লিন অভিনয় করেছেন। এ ছাড়াও রয়েছেন- হেলেনা বনহাম কার্টার, লুই পার্টরিজ, আদিল আক্তার, ফিওনা শ, সুসি ওকোমা, ডেভিড বামবার প্রমুখ।

শার্লক হোমসের নাম শোনেননি, এমন পাঠক খুঁজে পাওয়া দায়। ব্রিটিশ লেখক স্যার আর্থার কোনান ডয়েলের 'আ স্ট্যাডি ইন স্কারলেট' গল্পে প্রথম দেখা মেলে বিশ্বখ্যাত প্রাইভেট গোয়েন্দা শার্লক হোমসকে। তার পর্যবেক্ষণ ক্ষমতা, ফরেনসিক সায়েন্স বিষয়ে গভীর জ্ঞান ও ঘটনার যৌক্তিক ব্যাখ্যার মাধ্যমে ঘটনার সঠিক সমাধান দিয়ে থাকেন। আইকনিক গোয়েন্দা চরিত্র শার্লক হোমস যদিও ছবির কেন্দ্রবিন্দু নয়, তবে ইলোনা চরিত্রের সম্প্রসারণে দেখা যাবে চরিত্রটি। ইনোলার ১৬তম জন্মদিনের সকালে তিনি জানতে পারেন তার মা অদৃশ্য হয়ে গেছেন। তার জন্য উপহার হিসেবে রেখে গেছেন অদ্ভুত সব জিনিস। কিন্তু তিনি কোথায় গেলেন, সে সম্পর্কে কিছুই জানেন না কেউ। কিশোরী ইনোলা তার মার নিখোঁজ হওয়ায় হতবাক। তার অনিচ্ছা সত্ত্বেও তাকে শিক্ষাগ্রহণের জন্য পাঠানোর প্রস্তুতি নেন দুই ভাই। ইলোনা অস্বীকৃতি জানান এবং তার মাকে খুঁজতে লন্ডনে পালিয়ে যান। দুই ভাইকে ছাপিয়ে রহস্যময় এক অভিযাত্রায় নেমে পড়েন। একটি বিপজ্জনক ও জটিল ষড়যন্ত্র উন্মোচন করতে প্রাণপণ চেষ্টা চালান। নিখোঁজ মাকে খুঁজে পেতে তার অলৌকিক প্রতিভাকে কাজে লাগান। ইতিহাসের গতিপথ ফেরাতে হুমকির মুখোমুখি হন। ইতোমধ্যেই চিত্রনাট্য, হাস্যরসাত্মক, অভিনয়, পোশাক এবং নির্মাণে দক্ষতার প্রশংসা ও ইতিবাচক পর্যালোচনা পেয়েছে সমালোচকদের কাছ থেকে। গত বছর অভিনয়শিল্পীদের যুক্ত হওয়া নিশ্চিত হলে জুলাইয়ে লন্ডনের বিভিন্ন স্থানে চিত্রগ্রহণ হয়। তবে ছবিটি প্রকাশের আগেই কনান ডয়েল এস্টেট নেটফ্লিক্সের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তিনি দাবি করেন, এটি শার্লক হোমসকে আবেগযুক্ত বলে চিত্রিত করে কপিরাইট লঙ্ঘন করা হয়েছে। এতে চরিত্রের যে যুক্তি প্রকাশ করেছেন, তা পাবলিক ডোমেইনের আওতায় পড়ে না; কারণ তাকে কেবল গল্পতে আবেগ বর্ণনা করা হয়েছিল ১৯২৩ থেকে ১৯২৭-এর মধ্যে প্রকাশিত এবং সেই সময়ে প্রকাশিত গল্পগুলোর কপিরাইট এখনও এস্টেটের অন্তর্ভুক্ত।

এমন পরিস্থিতির পাশাপাশি বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি। ফলে ওয়ার্নার ব্রাদ্রার্স পিকচারের একটি নাট্যমঞ্চ প্রকাশের বিপরীতে নেটফ্লিক্স ছবিটির বিতরণ অধিকার অর্জন করে। চলচ্চিত্র পর্যালোচনা প্রতিষ্ঠান রোটেন টমেটোতে ৮৬ এবং মেটাক্রিটিকে ৬২ শতাংশ গড় স্কোর পেয়েছে ছবিটি।