আলোচনা অনুষ্ঠান, গুণীজনদের সম্মাননা জানানোর মধ্য দিয়ে  উদযাপন হলো বাংলাদেশ কালচারাল রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিসিআরএ) রজতজয়ন্তী। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তনে শনিবার আয়োজন হয় অনুষ্ঠানটির।

সকাল ১০টায় জাতীয় সংগীতের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়। উদ্বোধন করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ এমপি। অনুষ্ঠানে ‘আজীবন সম্মাননা’ প্রদান করা হয় মঞ্চসারথী আন্তর্জাতিক নাট্যজন আতাউর রহমানকে। গান রচনায় অনন্য অবদান রাখায় সম্মাননা পান সাংবাদিক নেতা মোল্লা জালাল এবং সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব হিসেবে সম্মাননা অর্জন করেন ফাল্গুনী হামিদ। 

সাংস্কৃতিক অঙ্গনের বিভিন্ন শাখায় কয়েকজন গুণীকে বিসিআরএ রজতজয়ন্তী সম্মাননা ২০২০ প্রদান করা হয়। চলচ্চিত্র বিভাগে সম্মাননা পান মৌসুমী, ফেরদৌস, নাসরিন, নতুন প্রজন্মের নায়িকা অধরা খান, চলচ্চিত্র নির্মাতা হাসিবুর রেজা কল্লোল, জেসমিন আক্তার নদী এবং আবহমান বাংলার চিরন্তন কাহিনী নিয়ে 'খায়রুন সুন্দরী' চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য একে সোহেল।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়া। তিনি নিজ এলাকা গাইবান্ধা থেকে ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে অংশ নেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ভূমি সচিব মাকসুদুর রহমান পাটওয়ারী।

সংগঠনের সভাপতি অভি চৌধুরীর সভাপতিত্বে  আলোচনায় অংশ নেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, কৃষি ব্যাংকের চেয়ারম্যান মো. ইসমাইল, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাজ্জাদ হোসাইন এনডিসি, চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির সভাপতি ফাল্গুনী হামিদ প্রমুখ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠান উদযাপন কমিটির চেয়ারম্যান মিডিয়া ব্যক্তিত্ব বেনু শর্মা ও সাধারণ সম্পাদক দুলাল খান।

নাট্যজগতে অনন্য অবদানের জন্য মাহফুজ আহমেদকে সম্মাননা জানানো হয় আয়োজনে। ‌'মধ্যরাতের সেবা' নাটকে অসাধারণ অভিনয়ের নতুন প্রজন্মের অভিনেতা রাশেদ সীমান্তকেও জানানো হয় সম্মাননা। সমাজ সচেতনতামূলক নাটক রচনার জন্য টিপু আলম মিলন, বিজ্ঞাপন নির্মাতা সৈয়দ নাবিল আশরাফ এবং সংবাদ পাঠে নিউজ প্রেজেন্টার নাদিরা আশরাফকেও আয়োজনে সম্মানীত করা হয়।

সংগীত জগতে অনন্য অবদান রাখায় সম্মাননা বাপ্পা মজুমদার, রুমানা ইসলাম, মনির খান এবং গানবাংলা টেলিভিশনের মাধ্যমে বাংলা গানকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দেয়ার জন্য কৌশিক হোসেন তাপসকে সম্মাননা জানানো হয়।  এ বিভাগে আরও বিশেষ সম্মাননা পান গীতিকার শাহান কবন্ধ, সংগীতশিল্পী সাহিনা হক ও অনন্যা রুমা।

চলচ্চিত্র সংগঠক হিসেবে সম্মাননা পান চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, মহাসচিব বদিউল আলম খোকন, সাংস্কৃতিক সংগঠক চয়ন ইসলাম, মানবসেবায় বাংলাদেশ ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স এবং কৃষকের কল্যাণে অনন্য ভূমিকা রাখায় বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক।

চলচ্চিত্র সাংবাদিকতায় সম্মাননা পান  মনজুর কাদের জিয়া, কামরুল হাসান দর্পণ,  এবং শেখ আরিফ বুলবন। নৃত্য বিভাগে শ্রাবন্তী রহমান এবং ইভেন্ট অর্গানাইজার হিসেবে মো. খাদিমুল ইসলাম সালমানকে সম্মানীত করা হয়। 

বিষয় : বিনোদন গুণীজনদের সম্মাননা

মন্তব্য করুন