গত ১০ ডিসেম্বর মধ্যরাতে লাক্সতারকা, মডেল ও অভিনেত্রী অপর্ণা ঘোষের বিয়ে সম্পন্ন হলো। সনাতন ধর্মীয় রীতি অনুসারে অভিনেত্রীর গ্রামের বাড়ি চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে বিয়ের সকল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়।

অপর্ণার বরের নাম সত্রাজিৎ দত্ত। পেশায় ইঞ্জিনিয়ার, কর্মরত জাপানের একটি আইটি কোম্পানিতে। করোনা পরিস্থিতির মধ্যেই এক বন্ধুর মাধ্যমে সত্রাজিতের সঙ্গে অপর্ণার পরিচয়। এরপর পরস্পরে সম্পর্কে জড়ান। দুই পরিবারকে জানালে, তাদের বিয়েতে সম্মতি দেয় দুপক্ষ।

বৃহস্প্রতিবার রাত ন’টা নাগাদ বেশ জমকালো আয়োজনে অপর্ণার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। বর-কনের পরিবার এবং ঘনিষ্ঠ আত্মীয়-স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় হয়েছিল হয়েছিল অপর্ণার আশীর্বাদ।

তবে করোনার কারণে বড় আয়োজন করে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে পারেনি। তাই আগামী বছর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বড় আয়োজন করার ইচ্ছে বলে জানালেন অপর্ণা। এ অভিনেত্রী জানান, আগামি বছরের মে মাসে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করবো। তখন বিনোদন অঙ্গনের বন্ধু-সহকর্মীসহ সবাইকে আমন্ত্রণ জানাবো।

২০০৬ সালে ‘লাক্স চ্যানেল আই সুন্দরী প্রতিযোগিতা’র মাধ্যমে মিডিয়ায় পা রাখেন রাঙামাটির মেয়ে অপর্ণা ঘোষ। এ আসরে সেরা পাঁচে জায়গা পান তিনি।অপর্ণার প্রথম অভিনয় ছিলো ‘তবুও ভালোবাসি’ নাটকে। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

টিভি নাটক, মঞ্চ, মডেলিং, চলচ্চিত্র, উপস্থাপনাসহ বিনোদন জগতের প্রায় সব ক্ষেত্রেই তার সরব উপস্থিতি দেখা গেছে গত কয়েক বছরে।

বড়পর্দায়ও অভিনয় করছেন অপর্ণা। তার সিনেমাগুলোর মধ্যে ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’, ‘মেঘমল্লার’, ‘সুতপার ঠিকানা’, ‘ভুবন মাঝি’ বেশ প্রশংসিত হয়েছে।

২০১৩ সালে ‘মৃত্তিকা মায়া’ চলচ্চিত্রের জন্য শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রীর জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার অর্জন করেন তিনি।