জাফর ইকবাল। বাংলা চলচ্চিত্রের স্টাইলিশ নায়কদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন তিনি। তবে যতটা না স্টাইলিশ ছিলেন তার ছেয়ে বেশি ছিলেন তিনি অভিমানী ও আবেগপ্রবণ।আজ ৮ জানুয়ারি তার মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৯২ সালের আজকের এইদিনে চিরবিদায় নেন তিনি। 

স্টাইলিশ এ নায়কের মৃত্যুর দিনে সমকালের সঙ্গে কথা বলেন তার সঙ্গে জুটি হয়ে ৩০টি সিনেমায় অভিনয় করা আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন অভিনেত্রী ববিতা। কথায় কথায় ববিতা জানালেন, ক্যামেরার বাইরেও জাফর ইকবালের সঙ্গে তার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা। সেই সঙ্গে জানালেন মৃত্যুর পর জাফর ইকবালের কবর নিয়ে দুঃখবোধের কথাও। 

'জাফর ইকবাল একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। কিন্তু তাকে আজিমপুরে সাধারণ কবরস্থানে সমাহিত করা হয়েছে। একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে ভালো কোনখানে কবর দেওয়া যেত। কেন দেওয়া হয়নি জানি না।  এই বিষয়গুলো নিয়ে মন খারাপ হয়। খুব মনে পড়ে তার কথা!' - স্মৃতিচারণের  শুরুতেই কথাগুলো বলেন সোনালী যুগের নায়িকা ববিতা।

এরপর বলা শুরু করেন, ''জাফর ইকবাল অভিনীত শেষ সিনেমার নাম 'লক্ষী'।  সেই সিনেমায় একটি সংলাপ ছিলো- ‘ভাই আজিমপুর যাবো কীভাবে?’ এখনো আমার কানে বাজে তার বলা সংলাপটি। ছবিটি মুক্তির কিছুদিন পরই পাড়ি দেন জীবনের ওপারে। এ যেন শুরু হওয়ার আগেই সব শেষ হয়ে যাওয়া। চলচ্চিত্রকে আরও অনেক কিছু দিতে পারতেন। নিজেকে নিয়ে যেতে পারতেন অনন্য উচ্চতায়। কিন্তু ক্যানসার বাধা হয়ে দাঁড়ালো বাংলা চলচ্চিত্রের এগিয়ে যাওয়ার পথে। কেড়ে নিলো একটি তরতাজা প্রাণ। ভেঙে গেলো হাজারো স্বপ্ন। অনেক বড় বড় অভিনেতার সঙ্গে কাজ করেছি। আমাদের নায়করাজ রাজ্জাক ভাই, ফারুক, সোহেল রানাসহ আরও অনেকের অভিনয়ে আজও মুগ্ধ হয়েছি। ভারতের সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গেও  অভিনয় করেছি। কিন্তু, আমার পছন্দের নায়ক ছিলো জাফর ইকবাল। তার কিছু জিনিস আমাকে বরাবরই মুগ্ধ করতো। তিনি সুদর্শন ছিলেন। তার অভিনয় সাবলীল। তার কণ্ঠ, ব্যক্তিত্ব, ফ্যাশন সচেতনতা, রুচিবোধ চমৎকার। খুব ভালো ইংরেজি গান গাইতে পারতেন। গিটার বাজিয়ে ওর মুখে ইংলিশ গান শোনাটা আমাদের সময়কার যে কোনো মেয়ের জন্য স্বপ্নের একটি মুহূর্ত। ওর মতো পরিপূর্ণ কোনো নায়ক আমাদের চলচ্চিত্রে আসেনি।''

স্মৃতির ঝাপি খুলে ববিতা আরও বলেন, 'জাফর ইকবাল খুব অভিমানী এবং আবেগপ্রবণ ছিলেন। কিছুটা বোহেমিয়ান স্বভাবের। জীবনযাপন ছিলো কিছুটা অগোছালো। নিজের সময়ে তো বটেই, পরের সব প্রজন্মকেই প্রভাবিত করেছেন তিনি। শুধু অভিনয় বা গান দিয়ে নয়, ব্যক্তিত্বের আবেদন, পোশাক, স্টাইল সব মিলিয়ে জাফর ইকবাল যেনো ছিলেন এক গল্পের রাজকুমার! নিজস্বতা ছিলো অভিনয়ে। বাংলা চলচ্চিত্র তাকে মনে রাখবে।' 

জাফর ইকবাল অভিনীত প্রথম সিনেমার নাম ‘আপন পর’। খান আতাউর রহমান পরিচালনা করেছিলেন ছবিটি। ১৯৬৯ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটিতে তার নায়িকা ছিলেন কবরী। ৭০ দশকের মাঝামাঝি সময়ে ‘সূর্য সংগ্রাম’ ছবিতে ববিতার বিপরীতে প্রথম অভিনয় করেন তিনি। ১৯৭৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘মাস্তান’ ছবির বদৌলতে ড্যাশিং নায়কের পরিচিতি পান জাফর ইকবাল। রোমান্টিক নায়ক হিসেবে পরিচিতি পান ‘নয়নের আলো’ সিনেমার মাধ্যমে।

সর্বমোট ১৫০টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন জাফর ইকবাল। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য কিছু সিনেমা হলো- অবুঝ হৃদয়, ভাই বন্ধু, অবদান, প্রেমিক, সাধারণ মেয়ে, ফকির মজনু শাহ, দিনের পর দিন, বেদ্বীন, অংশীদার, মেঘ বিজলী বাদল, নয়নের আলো, সাত রাজার ধন, আশীর্বাদ, অপমান, এক মুঠো ভাত, গৃহলক্ষ্মী, ওগো বিদেশিনী, প্রেমিক, নবাব, প্রতিরোধ, ফুলের মালা, সিআইডি, মর্যাদা, সন্ধি, বন্ধু আমার, উসিলা ইত্যাদি।

গায়ক হিসেবেও তিনি ছিলেন অনন্য। ছোটবেলা থেকেই গানের সঙ্গে জড়িত ছিলেন। ১৯৬৬ সালে বন্ধুদের নিয়ে ‘রোলিং স্টোন’ ব্যান্ড গড়েছিলেন। এলভিস প্রিসলি তার খুব প্রিয় ছিল। সংগীত পরিচালক ভাই আনোয়ার পারভেজের সুরে ‘বদনাম’ ছবির ‘হয় যদি বদনাম হোক আরও’ গানটি দিয়ে চলচ্চিত্র প্লেব্যাকে অভিষেক হয় তার। সুরকার আলাউদ্দিন আলীর সুরে অনেক গান গেয়েছেন তিনি। তার গাওয়া শ্রোতা প্রিয় গানের মধ্যে রয়েছে ‘সুখে থেকো ও আমার নন্দিনী হয়ে কারো ঘরনি’, ‘তুমি আমার জীবন, আমি তোমার জীবন’, ‘হয় যদি বদনাম হোক আরও’। ৮০’র দশকে ‘কেন তুমি কাঁদালে’ শিরোনামে একটি অডিও অ্যালবাম প্রকাশ হয়েছিল তার।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের ২৫ বছর উদযাপন অনুষ্ঠানে ‘এক হৃদয়হীনার কাছে হৃদয়ের দাম কি আছে’ গানটি গেয়েছিলেন জাফর ইকবাল। পরে রফিকুল আলমও এই গানটি গেয়েছিলেন।