ফেসবুকে ঘোষণা দিয়ে আত্মহত্যা করলেন প্রয়াত বলিউড অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের ‘এম এস ধোনি : দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ এবং অক্ষয় কুমারের ‘কেসারি’ সিনেমায় কাজ করা অভিনেতা সন্দীপ নাহার। 

সোমবার রাতে মুম্বাইয়ের গুরগাঁও এলাকায় অভিনেতার নিজের বাসা থেকেই তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই অভিযোগ দায়ের হয়েছে থানায়। মৃত্যুর আগে ফেসবুকে একটি ভিডিও ও সুইসাইড নোট শেয়ার করেছিলেন সন্দীপ। 

হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, মূলত হতাশায় আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন সন্দীপ নাহার। দীর্ঘদিন ধরেই অবসাদে ভুগছিলেন তিনি। ব্যক্তিগত জীবন সুখের ছিল না, বেশ কিছুদিন ধরে ক্যারিয়ার ভালো যাচ্ছিল না তার। ক্যারিয়ারের সফলতা পাচ্ছিলেন না খুব একটা। যা মেনে নিতে পারছিলেন না তিনি। তাই আত্মহত্যার পথে হেটেছেন। 

ফেসবুকে সুইসাইড নোটে নিজেই এসব কথা বলে গেছেন সন্দীপ নাহার। ওই সুইসাইড নোটে তিনি লিখেন, আমি জানি আত্মহত্যা করা কাপুরুষতা, আমিও বাঁচতে চাই কিন্তু আর বেঁচে কোনও লাভ নেই। আমার স্ত্রী কাঞ্চন শর্মা এবং ওঁর মা বিনু শর্মা না আমাকে বুঝতে চেয়েছে না বোঝার চেষ্টা করেছে। আমার আর আমার স্ত্রীর ব্যক্তিত্ব একদম আলাদা, আমাদের কোনও মিল নেই। প্রতিদিনের ঝগড়া আর সহ্য করতে পারছি না, এতে কাঞ্চনের কোনও দোষ নেই কারণ ওর নেচারটাই এইরকম। ওর কাছে এগুলো নর্মাল কিন্তু আমার কাছে অ্যাবনর্মাল’। 

এদিকে টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে , এ ঘটনায় মুম্বাই পুলিশ একটি মামলা দায়ের করেছে এবং ঘটনার তদন্ত চলছে। এ ছাড়া পুলিশ ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনের অপেক্ষায় রয়েছে। পুলিশকে সন্দীপের স্ত্রী জানিয়েছেন, অভিনেতাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পান। ডেপুটি পুলিশ কমিশনার বিশাল ঠাকুর বলেছেন, ‘ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ পাঠানো হয়েছে এবং এর পরেই তাঁর মৃত্যুর আসল কারণ উদঘাটন করা যাবে।’

ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, সন্দীপ নাহারের পরিবার চণ্ডীগড়ে থাকে, তার মৃতদেহ সেখানেই নিয়ে যাওয়া হবে।

বিগত কয়েক বছরে বলিউডে অভিনেতাদের অপমৃত্যুর ঘটনা বেশিই ঘটছে। বেশির ভাগই ক্যারিয়ার নিয়ে অবসাদে ভুগে আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছেন তারা।  সবচেয়ে আলোচিত আত্মহত্যাটি ছিল সুশান্ত সিং রাজপুতের।  ১৪ জুন মুম্বাইয়ের বান্দ্রায় নিজ বাসায় এই অিভনেতা আত্মহত্যা করেন।