দেশের চলচ্চিত্র সাংবাদিকদের সংগঠন বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতিতে (বাচসাস) তিনজনের সদস্যপদ স্থগিত ও একজনের সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। সংগঠনবিরোধী কার্যক্রমে জড়িত থাকার প্রমাণ মেলায় ওই চারজনের বিরুদ্ধে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। বুধবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান বাবু স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতির সাবেক সভাপতি আবদুর রহমান, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকবাল করিম নিশান ও সাবেক সহসাধারণ সম্পাদক হামিদ মোহাম্মদ জসিমের সদস্যপদ স্থগিত করা হয়েছে। এছাড়া, বাতিল হয়েছে সাবেক অর্থ সম্পাদক নবীন হোসেনের সদস্যপদ ।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে নির্বাচিত কমিটির কাছে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বুঝিয়ে না দেওয়া, ৩৮ লাখ টাকার আয় ও ব্যয়ের হিসেবে অসঙ্গতি, অর্থনৈতিক প্রতিবেদনের সঙ্গে অডিট রিপোর্টে মিল না থাকা, সংগঠনের রেজুলেশন খাতা বুঝিয়ে না দেওয়া, সংগঠনবিরোধী কার্যক্রম করা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টার জন্য ওই চারজন অভিযুক্ত। ১৬ মাস ধরে সংগঠন থেকে মৌখিক ও চিঠির মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটি আবদুর রহমান, ইকবাল করিম নিশান, নবীনের কাছে উল্লেখিত বিষয়ে জানতে চাইলে তারা শুধু কালক্ষেপণ করেছেন এবং সংগঠনের ক্ষতিসাধন করেছেন। শাস্তিপ্রাপ্ত সদস্যদের বারবার অনুরোধ করার পরও এবং আত্মপক্ষ সমর্থন করে বক্তব্য প্রদানের জন্য চিঠি দিলেও তারা সবকিছু বুঝিয়ে দেননি। সর্বশেষ কার্যনির্বাহী পরিষদ গত ১৬ জানুয়ারি-২০২১ একটি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করে।

এতে আরও বলা হয়, তদন্ত কমিটি একাধিক বৈঠক করে বিভিন্ন কাগজপত্র যাচাই বাছাইয়ের মাধ্যমে প্রথমে সাবেক অর্থ সম্পাদক নবীন হোসেনকে তলব করে। নবীন হোসেন তদন্ত কমিটিকে ৩৮ লাখ টাকার মধ্যে মাত্র ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৪০০ টাকার বিল-ভাউচার দিতে পেরেছেন। বাকি টাকার খরচের হিসেব তিনি জানেন না বলে জানিয়েছেন। তিনি নিজেই বলেছেন, অডিট রিপোর্টে ঝামেলা আছে। তিনি জানান, কোন কোন খাত থেকে এই ৩৮ লাখ টাকা এসেছে, তা তিনি জানেন না এবং ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৪০০ টাকার বাইরে অন্য কোনো বিল-ভাউচার তার কাছে নেই। নবীন হোসেনের বক্তব্যের সূত্র ধরেই সাবেক সভাপতি আবদুর রহমান ও ইকবাল করিম নিশানকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র রেজুলেশন খাতাসহ তদন্ত কমিটি দেখা করার জন্য অনুরোধপত্র পাঠিয়ে চিঠি দিলেও তারা কেউই উপস্থিত হননি। পরে তদন্ত কমিটি প্রাপ্ত কাগজপত্র দেখে এবং সাবকে অর্থ সম্পাদক নবীন হোসেনের জবানবন্দীর আলোকে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। প্রতিবেদনে বিস্তারিত আলোচনা এনে তারা জানান যে,‘ ২০১৭ সাল থেকে ২০১৯ সালে আবদুর রহমান-ইকবাল করিম নিশানের মেয়াদকালে অর্থনৈতিক বিষয়ে নানা ধাপে অনিয়ম ও অপরাধ সংগঠিত হয়েছে। সেখানে অর্থ সম্পাদক নিজেও জড়িত ছিলেন। তিনজন একে অপরের সাথে যোগসাজশে এই অপরাধ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে সংগঠনের ক্ষতি করেছেন। এজন্য তিনজনই সমানভাবে দোষী।’ তদন্ত কমিটি, বাচসাস কার্যনির্বাহী পরিষদকে এই তিনজন সদস্যের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার সুপারিশ করেছে। সংগঠন থেকে তিনজনের প্রাথমিক সদস্যপদ স্থগিত অথবা বাতিল করার জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, তদন্ত কমিশনের প্রতিবেদন পর্যালোচনা ও সুপারিশকে আমলে নিয়েছে কার্যকরী পরিষদ। দেশের সবচেয়ে পুরোনো এবং ঐতিহ্যবাহী সাংবাদিকদের এই সংগঠনে যেন ভবিষ্যতে আর কেউ এধরনের কাজের সঙ্গে জড়িত হওয়ার সাহস না দেখাতে পারে, এজন্য কার্যকরী পরিষদ নজির স্থাপন করেছে। কার্যনির্বাহী পরিষদ তদন্ত কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী আবদুর রহমান ও ইকবাল করিম নিশানের প্রাথমিক সদস্যপদ আগামী দ্বিবার্ষিক সাধারণ সভা পর্যন্ত স্থগিত করেছে। সাবেক অর্থ সম্পাদক নবীন হোসেনের প্রাথমিক সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। অন্যদিকে যখন তদন্ত কমিটি তাদের নিরপেক্ষ কার্যক্রম শুরু করে এবং আবদুর রহমান ও নিশানকে প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ দেখা করার জন্য চিঠি পাঠায়, তখনই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক আপত্তিকর ভাষায় এভং উস্কানিমূলক কথাবার্তা বলেন। সেই সঙ্গে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদককে হেয় করেন।

এ বিষয়ে হামিদ মোহাম্মদ জসিমকে শোকজ করা হলে তিনি শোকজের কোনো জবাব দেননি বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। উল্টো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সংগঠনের বিভিন্ন কার্যক্রম নিয়ে আপত্তিকর পোস্ট দিতে থাকেন। এজন্য কার্যকরী পরিষদ হামিদ মোহাম্মদ জসিমের প্রাথমিক সদস্য পদও আগামী এজিএম পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।