তাহসান খান। মডেল, সংগীতশিল্পী ও অভিনেতা। এবারের বইমেলায় অধ্যয়ন প্রকাশনী থেকে প্রকাশ পেয়েছে তার প্রথম বই 'অনুভূতির অভিধান'। এই বই, সাম্প্রতিক ব্যস্ততা ও অন্যান্য প্রসঙ্গে কথা হলো তার সঙ্গে-

  • 'অনুভূতির অভিধান' নিয়ে পাঠক-ভক্তদের কেমন সাড়া পাচ্ছেন?

ভালোই। যারা 'অনুভূতির অভিধান' পড়েছেন তাদের কাছে থেকে প্রশংসা পেয়েছি। নিজে এখনও বই মেলায় যায়নি। আগামী সপ্তাহে যাবার ইচ্ছা রয়েছে। সেময় পাঠকদের সরাসরি প্রতিক্রিয়া পাবো। জীবনের গল্প আর অনুভূতি নিয়েই আমার বই।এতে অনুভূতি চর্চার কথা তুলে ধরেছি। অনুভূতির চর্চার মাধ্যমে পৃথিবী সুন্দর হয়- এটিই আমি বিশ্বাস করি। ২০ টি গল্পে রয়েছে নিজস্ব প্রাণ। পাশাপাশি রয়েছে ২০ টি কবিতাও। 

  • বইটিতে আপনার বেড়ে ওঠার গল্পও রয়েছে। কেমন ছিল সেই রঙিন দিনগুলি?

আমি এমন একটা যুগে বড় হই যখন স্কুলে কিংবা বাসায় শাসনের নামে মৃদু প্রহারের প্রয়োগ ছিল খুব স্বাভাবিক ব্যাপার। কিন্তু আমার স্কুল ছিল সেন্ট যোসেফ হাই স্কুল,একটা মিশনারী স্কুল। অনেক বছর ধরে বিদেশী প্রধান শিক্ষকের পরিচালনায় থাকায় অন্যান্য স্কুলের তুলনায় শারিরীক প্রহারের প্রয়োগ ছিল খুব কম। আর আমিও ছিলাম শান্ত শিষ্ট তাই মার খেতে হয়নি কখনো। বাসায় যদিও আমার মা, বাবা বারাবরই খুবই কড়া প্রকৃতির ছিলেন। এই ব্যাপারটায় তারা ছিলেন অসম্ভব প্রগতিশীল এবং নমনীয়। মোট কথা সে যুগে বেড়ে ওঠা মানে জাঁলি বেতের সাড়াশি অভিযানে পুরো প্রজন্ম তটস্থ,সেই যুগে প্রহার ব্যতিরেকে আমার শৈশবের বেড়ে ওঠা। কিন্তু সবসময় পারিবারিক শানের মধ্যে ছিলাম।

  • এবার অভিনয়ের প্রসঙ্গে আসা যাক। ঈদের কাজ কী শুরু করেছেন?

একখনও পুরোদমে কাজ শুরু করিনি। মেয়ে আইরা ঢাকায় এসেছে। তাকে সময় দিচ্ছি। বাসায় সময় কাটছে। এই সুযোগে আমার নতুন গান 'সেই তুমি কে' গানের মিউজিক ভিডিও'র পরিকল্পনা করছি। এর স্পন্সর করছে ফ্রেশ প্রিমিয়াম টি। কক্সবাজারে শিগগিরই মিউজিক ভিডিও'র দৃশ্যধারণ হবে।

  • অভিনয় জীবনে কোন চরিত্রটি করার জন্য এখনও মনের ভেতর ইচ্ছা পোষণ করেন?

সবসময় আমি চরিত্রের মাধ্যমে ভালো গল্প বলার চেষ্টা করি। গল্পের ভেতর দিয়ে দর্শক হাসবে, কাঁদবে, শিল্পের সঙ্গে একাত্ম হবে। তাই দর্শকের অনুভূতিকে স্পর্শ করতে চাই। তাহলে শিল্পজ্ঞানের যে কোনো মাধ্যমেই সফল হওয়া যায়। তাই নির্দিষ্ট কোনো চরিত্র নিয়ে ভাবি না। অনেকেই ভিউয়ের হিসেবে মাথায় রেখে অভিনয় করছেন।

  • ভিউয়ের চাপে কী মানসম্পন্ন নাটক হারিয়ে যাচ্ছে?

একজন শিল্পী শিল্পী সত্ত্বা বিকাশের জন্য যেমন কাজ করে তেমনি দর্শকদের কথাও তাকে ভাবতে হয়। আমি মনে করি দুটোরই ব্যালেন্স দরকার। তাহলে শিল্পী হিসেবে টিকে থাকা সম্ভব। ভালো কাজ কোথাও না কোথাও না কোথাও পৌঁছাবে। হয়তো অনেক মানুষ দেখবে না, যার দেখার সে ঠিকই খঁজে নেবে। অনেক শিল্পী সত্বা বিকাশের চেয়ে দর্শক চাহিদাকে বেশী গুরুত্ব দিচ্ছে। এটা ঠিক নয়।

  • অডিও ইন্ডাষ্ট্রির এই সময়কে আপনি কীভাবে দেখছেন?

অডিও ইন্ডাষ্ট্রির অবস্থা আরও ভালো হবে বলেই আমার ধারণা। শুরুর দিকে অনলাইনে গান বা ভিডিও প্রকাশের বিষয়টি অনেকের মেনে নিতে কষ্ট হয়েছে। কিন্তু ধীরে ধীরে আমরা এ মাধ্যমে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছি। করোনা কাটিয়ে উঠতে পারলে আবারও ঘুরে দাঁড়াবে এ ইন্ড্রষ্ট্রি।

বিষয় : তাহসান খান সংগীত শিল্পী ও অভিনেতা

মন্তব্য করুন