কখনও বন্ধু, কখনও ম্যানেজার, কখনও বডিগার্ডের দায়িত্ব পালন করেন ঢাকাই ছবির নায়িকাদের মায়েরা। তাই মা পাশে থাকলে সাহস নিয়েই এগিয়ে যাওয়া যায় বলে মন্তব্য অধিকাংশ নায়িকার। শুটিং সেটে ’মা’রাই নায়িকাদের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে থাকেন।  বিশ্ব মা দিবসে নায়িকাদের মায়েদের নিয়েই এ আয়োজন।

মেয়েদের বিনোদন জগতে পা রাখার ইচ্ছাকে ধরা হয় ‘ট্যাবু’ হিসেবে। নানা বাঁধা বিপত্তি পেরিয়ে আজ তারা নায়িকা। রঙ্গিন পর্দার জনপ্রিয় তারকা। কিন্তু  ঢালিউডের পর্দা কাঁপিয়ে বেড়ানো অনেক নায়িকা আছেন, যাদের স্বপ্ন দেখতে সাহায্য করেছেন তাদের মায়েরা। প্রতিটি পদক্ষেপে সন্তানের স্বপ্নে সঙ্গী হয়েছেন। 

মা দিবস উপলক্ষে জয়া আহসানের কথা জানতে চাওয়া হয় তার মাকে নিয়ে। তিনি বলেন, ‘মাকে কখনো বলা হয় না—আই লাভ ইউ, মা। তোমাকে ভালোবাসি। মা, আমি তোমাকে ভালোবাসি! কিন্তু কথাটি মাকে সরাসরি না বললেও মাকে আমরা ভেতরে ভেতরে ধারণ করি। আমার মা  ভেঙে পড়া মানুষ না। আমার মা অদ্ভুতভাবে শক্ত মানুষ। তার জন্যই আমারে সব সাফল্য।’

মাকে নিয়ে মিম বললেন, মায়ের জন্যই আজ আমি বিদ্যা সিনহা মিম।  আজকের এ অবস্থানে আসার পেছনে মায়েরই সর্বাধিক অবদান। মিমের কথার সঙ্গে সুর মিলিয়ে ঢাকাই ছবির অধিকাংশ নায়িকাই এ কথা বলবেন। বলেনও।  মা আছে  বলেই একের পর এক বাধা জয় করে সামনে এগিয়ে যেতে সাহস হয় তাদের। নায়িকাদের মায়েরাও  তাই মেয়েকে মেয়েকে নিয়ো গর্ব  করেন। আগলে রাখতে চান। টেনশন করেন মেয়েকে নিয়ে, মেয়ের ক্যারিয়ার নিয়ে। 

শুধু যে কাজের ব্যাপারে টেনশন তা কিন্তু নয়। ব্যাক্তিজীবনেও রয়েছে মায়ের বড় ভুমিকা। কার সঙ্গে প্রেম করছেন। কার সঙ্গে ডেটিংয়ে যাচ্ছেন। সংসার কীভাবে করছেন। স্বামীর সঙ্গে বনিবনা হচ্ছে কিনা সবটাই নায়িকাদের মায়ের নজরদাড়িতেই থাকে। তাই বলা যায় মা ছাড়া যেনো ঢাকাই ছবির নায়িকা বিদ্যা সিনহা মিম, মাহিয়া মাহি, অপু বিশ্বাস, বুবলী নুসরাত ফারিয়া, ববি পূজা চেরি একেবারেই অচল।  তবে নুসরাত ফারিয়া ও বুবলীর বেলায় ব্যতিক্রম। তারা শুটিং সেটে মাকে নিয়ো খুব একটা আসেন না। তবে তাদের নেপথ্যে মা কাজ করেন। সেটা বাসায় থেকেই। 

বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে অনেক  নায়িকা মায়ের সঙ্গে ছবি পোস্ট করেছেন। ক্যাপশনে ছড়িয়েছেন মায়ের প্রতি ভালোবাসা। মা দিবসে মাকে নিয়ে মাহিয়া মাহি বলেন, মাকে নিয়ে বিশেষ কিছৃু বলার নেই। মা শব্দটিই পৃথিবীর সেরা শব্দ। প্রতিটি সন্তানের কাছেই তার মা সেরা মা। মা দিবসে তাই প্রতিটি মাকে জানাই শ্রদ্ধা। 

বিদ্যা সিনহা সাহা মিমের মা এখন শোবিজে বেশ আলোচিত। মিমের সঙ্গে দেশ-দেশান্তরে তিনি ঘুরে বেড়ান।  মিম তার মাকে সবচেয়ে কাছের বন্ধ বলে সম্বোধন করলেন। বললেন, মায়ের মতো একজন বন্ধু সবার জীবনে থাকা দরকার। যে সমস্যা মায়ের কাছে বললে সমাধান চলে আসে। 

মাকে নিয়ে বুবলী বলেন, প্রচণ্ড ভালোবাসি আমার মাকে। হয়তো কখনও আম্মুকে বলা হয়না ওভাবে কিন্তু নিজে অনুভব করি। মা আমার অক্সিজেন। আসলে মায়ের অবদান বা ভালোবাসা কখনও বলে শেষ করা যায়না। সবসময় চাই মায়ের মুখের হাসিটা দেখতে। সবাই আমার মায়ের জন্য দোয়া করবেন যেন উনি সুস্থ থাকেন, ভালো থাকেন। সৃষ্টিকর্তা আমাকে মায়ে দীর্ঘজীবী করুন এই কামনায় রইলো।'


মন্তব্য করুন