কুমার বিশ্বজিৎ। নন্দিত এই কণ্ঠশিল্পী ও সংগীত পরিচালকের জন্মদিন আজ। সুবর্ণ এই দিনটি নিয়ে নিজস্ব ভাবনা তুলে ধরেছেন তিনি। একই সঙ্গে কথা বলেছেন বর্তমান ব্যস্ততা ও সাম্প্রতিক সময়ের বিভিন্ন প্রসঙ্গ নিয়ে-

  • সমকালের পক্ষ থেকে আপনাকে জানাই জন্মদিনের শুভেচ্ছা। আজকের এই বিশেষ দিনটি কীভাবে কাটানোর পরিকল্পনা করেছেন?

শুভেচ্ছার জন্য সমকাল পরিবারের সবাইকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। জন্মদিন এলে সবার শুভেচ্ছা আর ভালোবাসা পাই- এটাই আমার কাছে বড় পাওয়া। তাই এই বয়সে এসে জন্মদিন উদযাপন নিয়ে আলাদা করে কিছু ভাবি না। এজন্য আজকেও কোনো কিছু করার পরিকল্পনা করিনি। বরং আফসোস করছি এটা ভেবে যে, জীবন থেকে আরেকটি বছর চলে গেল। গানের ভুবনের বড় ভাই, বন্ধু, সহযোদ্ধা আলাউদ্দিন আলী, লাকী আখান্দ, এন্ড্রু কিশোর, খালিদ হাসান মিলু, আইয়ুব বাচ্চু, শেখ ইশতিয়াক, আলী আকবর রুপু, ফরিদ আহমেদের কথাও বারবার মনে পড়ছে।

  • অনেক দিন স্টেজ শো, টিভি লাইভে দেখা যাচ্ছে না। ঘরবন্দি সময় কাটছে কীভাবে?

করোনার জন্য বাইরে যেতে পারছি না, আবার হাত গুটিয়ে বসে থাকাও কষ্টের। তাই ঘরে বসেই গান তৈরি করে যাচ্ছি। অন্যদের সুরে গান গাওয়ার কাজও চলছে।

  • অন্যদের সুরে যেসব গান রেকর্ড করেছেন, সেগুলো কতটা ভিন্ন ধরনের মনে হয়েছে?

গান তো টাকার জন্য গাই না, শিল্পীসত্তাকে খুশি রাখার জন্যই গাই। তাই দীর্ঘ সংগীত ক্যারিয়ারে সংগীতের মানের বিষয়ে কখনও ছাড় দিইনি। এই সময়ে এসেও একই ভাবনা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছি। রাজীবের কথা ও সুরে 'মেঘদূত' শিরোনামের একটি গান। এই গান রেকর্ড করার আগে যে বিষয়টা আমাকে সবচেয়ে মুগ্ধ করেছে, তা হলো এর কাব্যিক কথা। রাজীবের লেখা এতই চমৎকার লেগেছে, বলে বোঝাতে পরব না। সুরেও যত্নের ছাপ আছে। তাই গান রেকর্ড করার পর আলাদা এক ধরনের ভালো লাগা কাজ করেছে। এর পাশাপাশি কিশোরের সুরে 'ঐশ্বর্য' নামের মিক্সড অ্যালবামের জন্য দুটি গান গেয়েছি। আসিফ ইকবালের লেখা এই গান দুটি আমার আগের কাজগুলো থেকে কিছুটা ভিন্ন ধাঁচের হবে বলেই আমার ধারণা।

  • সংগীতাঙ্গনের এখনকার যে চিত্র, তা আপনাকে কতটা ভাবায়?

খুবই খারাপ লাগে এটা দেখে যে, গান যাদের প্রাণ, সেই মানুষগুলোর হাত বাঁধা। স্টেজ শো নেই, টিভি লাইভও আগের মতো হচ্ছে না, যে জন্য অনেকের আয়ের উৎস বন্ধ হয়ে গেছে। এক দিন দু'দিন নয়, প্রায় দুই বছর ধরেই মিউজিশিয়ানদের অবস্থা খারাপ। যারা প্রাণের তাগিদে মিউজিক করে, তাদের দিন যে কীভাবে কাটছে তা বলে বোঝানো কঠিন। একটা অদৃশ্য পরজীবীর কাছে আমার এভাবে জিম্মি হয়ে পড়ব- তা সত্যিই ভাবিনি। করোনার জন্য শুধু গানের ভুবন নয়, প্রতিটি অঙ্গনের মানুষকে কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে পথ পাড়ি দিতে হচ্ছে। এর চেয়ে কষ্টের বিষয় হলো, এই করোনার জন্য আমার বিভিন্ন অঙ্গনের এমন কিছু মানুষকে হারিয়েছি, যারা ছিলেন আমাদের পথপ্রদর্শক, আদর্শ এবং বাতিঘরের মতো আলোকিত।