বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেতা দিলিপ কুমার সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেছেন। শুক্রবার দুপুরে মুম্বাইয়ের হিন্দুজা হাসপাতাল থেকে তিনি ছাড়পত্র পান।

হাসপাতাল থেকে বের হওয়ার সময় সেখানে উপস্থিত পাপারাৎজিদের দেখে হাত নাড়েন দিলীপ কুমারের স্ত্রী অভিনেত্রী সায়রা বানু। সংবাদ-মাধ্যমকে সায়রা বানু জানান, ''আমরা খুব খুশি। ওর (দিলীপ কুমার) ফুসফুসে যে পানি জমেছিল, তা বের করা গেছে। উনি এখন ভালো আছেন, বাড়ি যাচ্ছেন। যারা ওর সুস্থাতা কামনা করে প্রার্থনা করেছিলেন তাদের সকলকে ধন্যবাদ জানাই।'

গত ৬ জুন বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেতা দিলীপ কুমারকে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যার কারণে মুম্বাইয়ের খারের পিডি হিন্দুজা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। চিকিৎসক জলিল পারকর আর চিকিৎসক নীতিন গোখলের তত্ত্বাবধানে এক বিশেষ টিম তাঁর চিকিৎসা করছিল। 

চিকিৎসক জলিল পারকর জানিয়েছিলেন, ফুসফুসে পানি জমার কারণে শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন এই বর্ষীয়ান অভিনেতা। তবে আইসিইউ এবং ভেন্টিলেশনে কখনো রাখা হয়নি তাকে। শুরু থেকেই অক্সিজেন সাপোর্টে ছিলেন দিলীপ কুমার। অক্সিজেন লেভেল ওঠানামার কারণে তাকে অক্সিজেন সাপোর্টে রাখা হয়েছিল। তবে শুরু থেকেই চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছিলেন ৯৮ বছর বয়সী এই অভিনেতা। দিলীপ কুমারের স্ত্রী  অভিনেত্রী সায়রা বানু ক্রমাগত তার শারীরিক অবস্থার কথা টুইট করে জানিয়েছেন।

দিলীপ কুমারের প্রকৃত নাম মোহাম্মদ ইউসুফ খান। ১৯২২ সালের ১১ ডিসেম্বর বর্তমান পাকিস্তানের পেশোয়ারে তার জন্ম। দীর্ঘ ছয় দশকের অভিনয় জীবনে ‘দেবদাস’, ‘মুঘল-ই-আজম’, ‘গঙ্গা-যমুনা’, ‘রাম ঔর শ্যাম’, ‘নয়া দৌড়’সহ অসংখ্য দর্শকনন্দিত চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। ১৯৯৮ সালে ‘কিলা’ ছবিতে শেষবারের মতো দেখা যায় কিংবদন্তি এ অভিনেতাকে।

২০১৫ সালে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা ‘পদ্মবিভূষণ’ পান দিলীপ কুমার। ১৯৯১ সালে দেশের তৃতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা ‘পদ্মভূষণ’ ও ১৯৯৪ সালে ‘দাদাসাহেব ফালকে’ পুরস্কারে ভূষিত হন এ অভিনেতা।  সূত্র: জিনিউজ


মন্তব্য করুন