এফডিসির পরিচিত মুখ ভুলু বারী। সিনেমার একজন জুনিয়র শিল্পী তিনি। বাংলাদেশের প্রথম সবাক চলচ্চিত্র ‘মুখ ও মুখোশ’-এর অভিনেত্রী বিলকিস বারীর মেয়ে। সিনেমার শুটিং থাকুক বা না থাকুক এফসিতে সকাল-সন্ধ্যা পড়ে থাকেন তিনি। কাজ করে বা কেউ খুশি হয়ে কিছু দিলে তা দিয়ে চলে তার সংসার। 

নিজের অবস্থার কথা জানিয়ে ভুলু বারি বলেন, 'সিনেমার কাজ থাকলে কিছু টাকা পাওয়া যায়। কাজ না থাকলেও এফডিসিতে গেলে অনেকে সহযোগিতা করেন। এবার তো বাসা থেকেই বের হতে পারছি না। তাছাড়া এফডিসিতেও এখন কেউ নেই। খুবই খারাপ সময় যাচ্ছে।'

মোট কথা করোনার ঊর্ধ্বমুখি সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর লকডাউন, চলচ্চিত্রের শুটিং বন্ধ ইত্যাদি কারণে ভীষণ অভাব-অনটনে দিন কাটানোর কথা যখন জানাচ্ছিলেন তখন এও জানালেন তার এই অভাবের কথা শুনে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন চিত্রনায়িকা পরীমণি। বিকাশে পাঠিয়েছেন ১০ হাজার টাকা। 

গণমাধ্যমকে ভুলু বারী বলেন, লকডাউনে খুব কষ্টে দিন যাচ্ছিলো। খবরটি শুনে পরীমণি আমাকে ফোন দেয়। প্রথমে বিশ্বাস হয়নি উনি যে পরী। আমার খোঁজ-খবর জানতে চায়। খোঁজ খবর নেওয়ার পর আমার বিকাশ নাম্বার নেয়। পরে আমার বিকাশে দশ হাজার টাকা পাঠিয়ে দিয়েছে। এরপর বলে,  প্রয়োজন হলে আমি যেন তাকে ফোন দেই।

বিষয়টি জানতে চাইলে পরীমণি বলেন, 'এফডিসি আমার পরিবার। করোনাকালে পরিবারের লোকজনের খবর নিতেই পারি। যতদিন বাচবো সামর্থ অনুযায়ী পরিবারের সদস্যদের দেখে যাবো।'

ভুলু বারী সর্বশেষ ‘লিডার, আমিই বাংলাদেশ’ সিনেমায় জুনিয়র শিল্পী হিসেবে কাজ করেছেন। তপু খান পরিচালিত ছবিটিতে মূখ্য চরিত্রে আছেন শাকিব খান-বুবলী।