বরিশাল বিভাগে করোনা পজেটিভ শনাক্তের সংখ্যা প্রতিদিনই আগের দিনের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এখানে নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে অর্ধেকের বেশি রোগী করোনা পজেটিভ শনাক্ত হচ্ছেন। মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে আগের ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের ৬ জেলায় ৪৫৯ জন করোনা পজেটিভ শনাক্ত হন। আগের দিন সোমবার এ সংখ্যা ছিল ৪৩৬ জন। 

গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫২ দশমিক ৫২। যা সোমবার ছিল ৪৫ দশমিক ৭৫। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ২৪ ঘণ্টায় জেলায় পজেটিভ শনাক্ত ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।  

তবে বরিশাল শেরেবাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় হাসপাতালের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা জে খান স্বপন জানান, মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত আগের ২৪ ঘণ্টায় এ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ৯ জন মারা গেছেন। তার মধ্যে ২ জন পজেটিভ শনাক্ত এবং অপর ৭ জনের উপসর্গ ছিল। 

তিনি আরও জানান, হাসপাতালের আরটিপিসিআর ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৩৯ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। সে হিসেবে শনাক্তের হার ৭৩ দশমিক ৯৩। 

বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস জানান, ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের ৬ জেলায় ৮৭৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করলে ৪৫৯ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। মৃত ৫ জনের মধ্যে পিরোজপুরে ৩ জন ও ঝালকাঠীতে ২ জন।

চলতি সপ্তাহে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পর ঝালকাঠি জেলায় মঙ্গলবার বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ শনাক্ত ছিল। এখানে মঙ্গলবার শনাক্তের হার ৫৭ দশমিক ৭৮। এ জেলায় ১৮০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১০৪ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। 

বরিশাল জেলাও ঝালকাঠির কাছাকাছি অবস্থানে রয়েছে। এখানে মঙ্গলবার শনাক্তের হার ৫৬ দশমিক ৬৯। জেলায় ৩১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৭৮ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। 

পটুয়াখালীতে ৭০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৩৬ জনই পজেটিভ শনাক্ত হয়েছেন। শনাক্তের হার ৫১ দশমিক ৪৩। পিরোজপুরে শনাক্তের হার ৪৯ দশমিক ৪১। এ জেলায় ১৭০ জনের পরীক্ষায়  ৮৪ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। 

বরগুনায় ৯৬ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৪৩ জন এবং ভোলায় ৪৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৪ জন পজেটিভ শনাক্ত হন। শনাক্তের হার যথাক্রমে ৪৪ দশমিক ৭৯ এবং ৩১ দশমিক ৮২।