চিত্রনায়িকা পরীমণি। বিগত বছরের মতো এ বছরও সহশিল্পীদের জন্য কোরবানি দিয়েছেন। এ ছাড়া ঈদের ঠিক আগের রাতে প্রকাশ পেয়েছে তার অভিনীত প্রীতিলতা ছবির ফাস্ট লুক।এ সব নিয়ে সমকালের সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি

ঈদের ঠিক আগের রাতে প্রীতিলতা লুকে হাজির হলেন। এর পেছনে বিশেষ কোন কারণ...

বিষয়টি তো আমি বলতে পারবো না।এটা বলতে পারবেন 'প্রীতিলতা' সিনেমার পরিচালক-প্রযোজকরা। তবে আমি বলব- টিম প্রীতিলতার পক্ষ থেকে এটি দর্শকদের ঈদের শুভেচ্ছা বা উপহার। নিজেকে প্রীতিলতা লুকে দেখে আমি নিজেও চমকে গেছি।

গ্ল্যামারাস লুকের বাইরে 'প্রীতিলতা' লুকে কতটা প্রশংসা পাচ্ছেন?

ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের অন্যতম স্মরণীয় ব্যক্তিত্ব প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের জীবনের গল্প নিয়ে নির্মিত ছবিটি। এতে প্রীতিলতার ভূমিকায় অভিনয় করছি। প্রীতিলতা তো আমাদের কাছে চির উজ্জ্বল। পোস্টারটি প্রকাশ করার পর থেকেই কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ প্রশংসা করছেন সবাই। দর্শকরা ভালো কাজ চান। কাজ  ভালো হলে তারা গ্রহণ করেন। খারাপ হলে সমালোচনা করেন। এখন পর্যন্ত সবার কাছ থেকে প্রশংসাই পাচ্ছি। 

আপনার 'প্রীতিলতা' হয়ে উঠার পেছনে কারা?

 ছবিটি পরিচালনা করছেন রাশিদ পলাশ। চিত্রনাট্যকার গোলাম রব্বানি। তারা সার্বক্ষণিক প্রীতিলতা চরিত্রটির জন্য আমাকে প্রস্তুত রেখেছেন। মানসিকভাবে প্রীতিলতা বানাতে সহায়তা করেছেন। আর পোস্টারে যে প্রীতিলতা তার সাজসজ্জার পেছনে ফ্যাশন ডিজাইনার বিপ্লব সাহা। 

এ বছরও সহশিল্পীদরে জন্য কোরবানি দিলেন। এর ধারবাহিকতা কি চলবেই?

আমি আগেই বলেছি, এফডিসি আমার দ্বিতীয় পরিবার। কয়েক বছর ধরে এই পরিবারের মানুষদের জন্য কোরবানি দিচ্ছি। তারই ধারাবাহিকতায় এবার ছয়টি গরু কোরবানি দিয়েছি। প্রতিবছরই গরুর সংখ্যা একটি করে বাড়াবো। পরিবারের সদস্যরা খুশি থাকলে আমি তৃপ্ত। যতদিন বেঁচে থাকবো- এফডিসিতে কোরবানি দেবো। 

কিন্তু বিগত বছরের ন্যায় এ বছর তো এফডিসির ভেতরে কোরবানির অনুমতি ছিলো না...

আমি কিন্তু এফডিসির জন্য কোরবানি দেই না। আমি কোরবানি দেই এফডিসির মানুষের জন্য। এফডিসির ভেতরে কোরবানি না হলেও আমি এফডিসির মানুষের জন্য এবং তাদের নিয়েই কোরবানি দিয়েছি। 

আগামী বছর কয়টা গরু কোরবানি দেওয়ার ইচ্ছে?

আগামী বছর সাত গরু কোরবানি দেবো ইনশাল্লাহ।