মা-বাবার কবরের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিল্প-উপমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ হাসিবুর রহমান স্বপন।

শুক্রবার বাদ জু'মা শাহজাদপুর মডেল সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে চুনিয়াখালীপাড়া মখদুমিয়া কবরস্থানে মা-বাবার কবরের পাশে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

এর আগে এদিন ভোরে এমপি স্বপনের মৃতদেহ তুরস্ক থেকে দেশে আসার পর সকাল সাড়ে ৮টায় সংসদ ভবনে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

শাহজাদপুরে জানাজার আগে দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে ইউপি চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, এমপি, মন্ত্রী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করা হাসিবুর রহমান স্বপনের জীবন ও কর্মের ওপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা শেষে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। পরে তার কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সদস্য মেরিনা জাহান কবিতা, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাজ্জাদ হায়দার লিটন, কেন্দ্রীয় বাসদ নেতা রেজাউল রশিদ খাজা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী লতিফ বিশ্বাস, সাবেক সংসদ সদস্য চয়ন ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি কে এম হোসেন আলী হাসান, সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ তালুকদার, সিরাজগঞ্জ জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহম্মেদ, পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর আজাদ রহমান, ইউএনও শাহ মো. শামসুজ্জোহা প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময় বৃহস্পতিবার ভোররাত সোয়া ৩টার দিকে তুরস্কের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান সিরাজগঞ্জ-৬ (শাহজাদপুর) আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক শিল্প উপমন্ত্রী হাসিবুর রহমান স্বপন। তার বয়স হয়েছিল ৬৬ বছর। তিনি স্ত্রী, তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

চলতি বছর ফেব্রুয়ারিতে তুরস্কের একটি হাসপাতালে কিডনি প্রতিস্থাপন করেন এমপি স্বপন। সফল অস্ত্রোপচার শেষে সুস্থ হয়ে ১২ মার্চ দেশে ফেরেন তিনি। এ অবস্থায় গত ২৫ জুলাই করোনায় আক্রান্ত হন। অবস্থার অবনতি হলে গত ২৯ আগস্ট তাকে আবারও তুরস্কে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোরে তিনি মারা যান।

১৯৫৬ সালের ১৬ জুন পৈতৃক বাড়ি সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পাঠানপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা হাসিবুর রহমান স্বপন। তিনি আশির দশকে পরিবহন শ্রমিক সংগঠনের নেতৃত্ব দেন। ১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী হিসেবে তৎকালীন সিরাজগঞ্জ-৭ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীকালে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ঐক্যমতের সরকার গঠনের ডাক দিলে তিনি তাতে যোগ দিয়ে শিল্প উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। সে সময় বিএনপি তাকে দল থেকে বহিষ্কার করলে তিনি আওয়ামী লীগে যোগ দেন।

এরপর ২০১৪ সালের দশম ও ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে সিরাজগঞ্জ-৬ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন স্বপন। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন।