করোনা ভাইরাসের নতুন ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা ফেরত সাত প্রবাসীকে তাদের নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টিনে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। সোমবার সন্ধ্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের হলরুমে জরুরি বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসক হায়াত-উদ-দৌলা-খাঁন।

জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে সাতজন প্রবাসী ব্রাহ্মণবাড়িয়া ফিরেছেন। তাদের মধ্যে বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় একজন, কসবা উপজেলায় তিনজন, নবীনগর উপজেলায় একজন ও সদর উপজেলার দুজন রয়েছেন।

এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিভিল সার্জন একরাম উল্লাহ বলেন, সভায় করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে আলোচনা হয়।  দক্ষিণ আফ্রিকা ফেরত সাত প্রবাসীর হোম কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট উপজেলার ইউএনওদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া বৈঠকে আখাউড়া স্থলবন্দরে কড়াকড়িভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও যাত্রী পারাপারসহ বাড়তি নজরদারির কথা বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক হায়াত উদ-দৌলা খাঁন জানান, আমারা জানতে পেরেছি সাতজন প্রবাসী এসেছেন। তাদের খুঁজে বের করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

জেলা করোনা নিয়ন্ত্রণ কমিটির সদস্য সচিব সিভিল সার্জন ডা. একরাম উল্লাহ জানান, ওই প্রবাসীদের বাড়িতে লাল পতাকা টানানোর কোনো নির্দেশনা নেই। তবে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হবে। সংশ্লিষ্টদের দ্রুত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বলা হয়েছে।

এ ব্যাপারে কসবা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ উল আলম জানান, তিনজনকে চিহ্নিত করে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। ১৪ দিন পর তাদের পরীক্ষা করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, আমরা এখনও আফ্রিকা ফেরতদের চিহ্নিত করতে পারিনি। তাদের খোঁজ করা হচ্ছে।