সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে  ডা. মুরাদ হাসান, চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি ও চিত্রনায়ক ইমনের একটি ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে। ওই অডিও ক্লিপস ফাঁসের সূত্র ধরে চিত্রনায়ক ইমনকে জিজ্ঞাসাদের জন্য মঙ্গলবার বিকেলে র‌্যাব কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে।

তার আগে সোমবার এবং আজ দুই দফা রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি কার্যালয়ে গিয়েছিলেন ইমন। সেখানে ডিবির যুগ্ম কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। 

মঙ্গলবার ইমনকে র‌্যাব কার্যালয়ে নেওয়ার বিষয়টি সমকালকে নিশ্চিত করেছেন র‌্যাবের লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন। 

তিনি বলেন, 'মূলত ফাঁস হওয়া ফোনালাপ ও বেশ কিছু বিষয়ে  জিজ্ঞাসাবাদের জন্যই বিকেলে নায়ক ইমনকে র‌্যাব কার্যালয়ে ডাকা হয়েছে।' 

এদিকে অডিও ক্লিপসটি ফাঁস হওয়ার  এক দিনের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন ডা, মুরাদ হাসান। এরপর জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ থেকেও তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এই মুরাদ ইস্যুতেই আলোচনায় নায়িক ইমন ও মাহিয়া মাহি। 

এর আগে অডিও ক্লিপস নিয়ে সমকালকে ইমন বলেন, ভাইরাল অডিও ক্লিপটি সঠিক। আমাদের অপর প্রান্তে ছিলেন প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। তবে এ ঘটনা দেড় বছর আগের।

ইমন আরও বলেন, আমরা একটি ছবির বিষয়ে মিটিং করছিলাম। তখন প্রতিমন্ত্রী ফোন দেন। তিনি কিন্তু প্রথমেই বলেছেন, ‘তুই ফোন ধরস নাই কেন?’ পরে উনিই আবার ফোন দেন। একজন মন্ত্রী বারবার ফোন দিচ্ছেন, আমি কিন্তু বলেছি, ‘হ্যাঁ, ভাই আসতেছি। দেখছি ভাই’। খারাপ কিছু কিন্তু বলিনি। একজন মন্ত্রীর সঙ্গে যেভাবে কথা বলা দরকার, সেভাবেই বলার চেষ্টা করেছি।