'আমার জীবনের স্মরণীয় ও স্বর্ণালি বছর ২০২১। দেখতে দেখতে বছরটি বিদায় নিচ্ছে। জীবন আসলে কোন দিকে যাবে- এটা ভেবে প্রথম দিকে আমি কিছুটা অনিশ্চয়তায় ছিলাম। এই অনিশ্চয়তা কাটিয়ে নানা দিক থেকেই অনেক প্রাপ্তি এসেছে। ওই জায়গা থেকে এখন পর্যন্ত অবশ্যই আমার জীবনের সেরা বছর এটি। অনেকেই বলেছেন এটি আমার ক্যারিয়ারের বাঁক বদলের বছর। এ কথার সঙ্গে আমি সম্পূর্ণ একমত নই। আমি মনে করি, এটি আমার পুরো জীবনের পরিবর্তনের বছর। ক্যারিয়ারের উত্থান-পতন থাকেই। আমার জীবনের দর্শন পরিবর্তন হয়েছে। ব্যক্তিগতভাবেও অর্জন অনেক বেশি বছরটিতে। জীবনের বোঝাপড়ায় আমূল পরিবর্তন এসেছে। মানুষ হিসেবে জীবনবোধের পরিবর্তন হয়েছে। এটা আমার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ।'

বিদায়ী বছরের পথপরিক্রমা নিয়ে এভাবেই কথাগুলো বললেন অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন। কান যাত্রা, বলিউডের ছবিতে অভিনয়, এশিয়া প্যাসিফিক স্ট্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডসে [অ্যাপসা] সেরা অভিনেত্রীর মনোনয়ন লাভ, আন্তর্জাতিক মিডিয়ার সেরা তারকাদের তালিকায় তার নাম ওঠা, মিউজিক্যাল ছবিতে অভিনয়সহ নানা কারণেই বছরজুড়ে আলোচিত ছিলেন এই অভিনেত্রী।

কান যাত্রা:

এ বছর বিশ্বের মর্যাদাপূর্ণ কান চলচ্চিত্র উৎসবের অফিসিয়াল সিলেকশন হিসেবে জায়গা করে নেয় বাঁধন অভিনীত ছবি 'রেহানা মরিয়ম নূর'। গত ৯ জুলাই কান উৎসবের লালগালিচা মাতিয়েছেন তিনি। বলাই যায়, তিনি দ্যুতি ছড়িয়েছেন। তার অপরূপ চোখ ধাঁধানো সৌন্দর্যে উদ্ভাসিত হয়েছে কানের সাগরপাড়। কানে পুরস্কার না পেলেও 'রেহানা মরিয়ম নূর' ছবিতে জটিল জীবনযাপন করা এবং যৌন হয়রানির বিরুদ্ধে লড়াই করা একজন দৃঢ় মানসিকতার নারীর চরিত্রে তার অভিনয় প্রশংসিত হয়েছে সারাবিশ্বের গণমাধ্যমে। রূপে-গুণে বিশ্ব চলচ্চিত্রের সম্মানজনক আয়োজনে আলো ছড়িয়েছেন তিনি।

বলিউডে অভিষেক:

চলতি বছর অক্টোবরের মাঝামাঝি নেটফ্লিক্সের প্রযোজনায় বলিউডের খ্যাতিমান নির্মাতা বিশাল ভরদ্বাজের 'খুফিয়া' চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন বাঁধন। প্রথমে এ সিনেমায় অভিনয়ের জন্য বাঁধনের অডিশন দেওয়ার খবর এসেছিল গণমাধ্যমে, বিষয়টি নিয়ে ঢালিউডে আলোচনার মধ্যেই তার নাম ঘোষণা করেন পরিচালক।

এশিয়া প্যাসিফিক স্ত্রিন অ্যাওয়ার্ডস জয়:

এশিয়া প্যাসিফিক স্ক্রিন অ্যাওয়ার্ডসে [অ্যাপসা] সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার জেতেন বাঁধন।'রেহানা মরিয়ম নূর' সিনেমায় অভিনয়ের জন্য এ পুরস্কার পান তিনি। অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের গোল্ড কোস্ট শহরে গত ১১ নভেম্বর অ্যাপসার ১৪তম আসরে বিজয়ীদের তালিকা ঘোষণা করা হয়। ৫ দেশের অভিনেত্রীকে টপকে বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম এ সুনাম অর্জন করেন তিনি।

আন্তর্জাতিক মিডিয়ার তালিকায়:

বছরের শেষ দিকে যুক্তরাষ্ট্রের বিনোদনভিত্তিক সাময়িকী 'ভ্যারাইটি' চলতি বছরে চমকে দেওয়া আন্তর্জাতিক তারকাদের তালিকা প্রকাশ করেছে। এ তালিকায় যুক্তরাজ্যের অভিনেতা তোহিব জিমোহ, কোরিয়ান-আমেরিকান অভিনেতা ডন লি, দক্ষিণ কোরিয়ার জং হো ইয়েন, ফ্রান্সের অভিনেত্রী মিলেনা স্মিথ, স্পেনের আলমুডেনা আমোরের সঙ্গে জায়গা পেয়েছেন আজমেরী হক বাঁধন। শুধু তাই নয়, বিনোদনভিত্তিক ওয়েবসাইট ফিল্মিসিল্মি ডটকমের বিশ্বের 'গেম চেঞ্জিং' তারকাদের তালিকায় এসেছে বাঁধনের নাম। যেখানে স্থান পেয়েছেন হলিউডের লেডি গাগা, ক্রিস্টেন সুয়ার্ট, এমা স্টোন, বলিউডের তারকা প্রিয়াঙ্কা চোপড়া, দীপিকা পাড়ূকোন, রণবীর সিং, কঙ্গনা রানাউতের মতো ৩৮ জন তারকা। দুটি আন্তর্জাতিক তালিকায় নিজের নাম থাকা নিয়ে বাঁধন বলেন, 'এটা ভীষণ ভালো লাগার ব্যাপার, ভীষণ আশ্চর্য হয়েছি। আমি বুঝতে পারিনি এরকম কিছু ঘটবে। অবশ্যই রেহানা মরিয়ম নূরের জন্য এই প্রাপ্তি। ছবিটি আমাকে আজকের জায়গায় পৌঁছে দিয়েছে। যদিও তালিকায় আমার নাম এসেছে, কিন্তু এর পুরো কৃতিত্ব আমার পরিচালক আবদুল্লাহ মোহাম্মাদ সাদের। তার দূরদৃষ্টি না থাকলে আমি আজকের বাঁধন হতে পারতাম না। বিশেষ করে ভ্যারাইটির তালিকাটি আমার কাছে বেশি সম্মানজনক মনে হয়েছে। কারণ সেখানে শুধু আমার ক্যারিয়ারগ্রাফের পরিবর্তনের কথা বলা হয়নি। একই সঙ্গে ব্যক্তিজীবনের চড়াই-উতরাই সুন্দরভাবে ফুটে উঠেছে। সমাজের জন্য একজন শিল্পী হয়ে যে দায়িত্ব পালন করি সেদিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।'

আগামীর প্রত্যাশা: এত বছর সমাজের তথাকথিত আদর্শ নারী হওয়ার প্রক্রিয়ার মধ্যে ছিলাম। সেই প্রক্রিয়া থেকে মুক্ত হয়েছি। আমৃত্যু মানুষ হওয়া ও নিজেকে আরও সংশোধনের চেষ্টা করব। প্রতিবছরের শুরুতে এটাই কামনা করি।