বিয়ের পর সনি পোদ্দারকে নিয়ে আগামী ১১ জানুয়ারি মধুচন্দ্রিমার উদ্দেশ্যে মালদ্বীপে উড়ে যাওয়ার কথা ছিলো বিদ্যা সিনহা মিমের। তার আগেই গত শুক্রবার শ্বশুর বাড়িতে উড়ে যান ঢাকাই ছবির এই নায়িকা। সেখানে নতুন বউকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বরণ করে নিলেন সবাই। একদিন থেকে ঢাকায় ফিরেও এসেছেন তিনি।

মিম জানিয়েছেন, প্রথমবার শ্বশুরবাড়ি ভ্রমণ স্মরণীয় করে রাখতে যানবাহন হিসেবে বেছে নিয়েছেন হেলিকপ্টার। এ যাত্রায় মিমের সঙ্গে ছিলেন তার বাবা, মা, ছোট বোন, মামা, মামাতো বোন ও ফটোগ্রাফার।  ঢাকা থেকে উড়াল দিয়েছেন কুমিল্লা শহরের ঈদগাহ ময়দানে। সেখানে থেকে গাড়িতে শ্বশুরবাড়ি।

শ্বশুরবাড়ি থেকে ঢাকায় ফিরেই  নতুন সংসার প্রসঙ্গে  মিম বলেন, ‘আমার নতুন পরিবার খুব ভালো, আমার মতই আরকি... আমার কাছে তাই আলাদা করে কিছু মনে হচ্ছে না।’

এদিকে ১১ জানুয়ারি মধুচন্দ্রিমায় মালদ্বীপে যাওয়ার কথা থাকলেও এ তারিখে যাওয়া হচ্ছে না। তারিখ পেছানো হতে পারে। কারণ বিয়ের পর বেশ কিছু আনুষ্ঠানিকতা সাড়তে হচ্ছে।  তাই করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে চলতি মাসের মাঝামাঝ সময়ে মধুচন্দ্রিমা করতে মালদ্বীপে যাওয়া হবে তার। 

এ প্রসঙ্গে মিম বলেন,সমুদ্র সৈকত আমার খুবই পছন্দের। এ কারণেই বিয়ের পর হানিমুনের জন্য দ্বীপরাষ্ট্র মালদ্বীপকেই বেছে নিয়েছি। তা ছাড়া এর আগে আমার কখনও মালদ্বীপে যাওয়া হয়নি। সেখানে রিসোর্টে নিজেদের মতো এই কয়েকটি দিন কাটাতে চাই আরমা। তবে মালদ্বীপে যাওয়ার বিষয়টি করোনা পরিস্থিতির ওপরও নির্ভর করছে।

গত ১০ নভেম্বর নিজের জন্মদিনে প্রেমিক সনি পোদ্দারের সঙ্গে বাগদান সারার পর ৪ জানুয়ারি বিয়ে করেন মিম। বাগদান জানিয়ে করলেও বিয়ে অনেকটা গোপনেই সাড়তে চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু গণমাধ্যমে বিয়ের খবর পূর্বেই প্রকাশ হয়। পরে মিমও ছবি প্রকাশ করে জানান বিয়ের খবর। 

মিমের স্বামী সনি পোদ্দার একজন ব্যাংকার। মিম জানান, বিয়ের আগে তাদের ছয় বছরের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো।

২০০৭ সালে একটি সুন্দরী প্রতিযোগিতার মুকুট জয়ের মধ্য দিয়ে ক্যারিয়ার শুরু করেন বিদ্যা সিনহা মিম। শুরুতেই নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্রকার হুমায়ূন আহমেদের ‘আমার আছে জল’ সিনেমায় অভিনয় করেন। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও পেয়েছেন তিনি।