আগামী ২৮ জানুয়ারি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ভোট। এই নির্বাচনকে ঘিরে রীতিমত সরগরম দেশের চলচ্চিত্র অঙ্গন। শেষ সময়ের প্রচারণায় ব্যস্ত মিশা-জায়েদ ও ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের সদস্যরা।

নির্বাচনকে সামনে রেখে গণমাধ্যমকর্মীদের সামনে বুধবার নির্বাচনী ইশতেহার প্রকাশ করেন সভাপতি প্রার্থী ইলিয়াস কাঞ্চন।

কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের নির্বাচনী ইশতেহারের শ্লোগান ‘মর্যাদা ও পর্দায় আমাদের শিল্পী’।

ইশতেহারে ২২ প্রতিশ্রুটি তুলে ধরেন ইলিয়াস কাঞ্চন। এর মধ্যে প্রথমেই বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া এফডিসিতে প্রধানমন্ত্রীর আগমনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা জোর দিয়ে বলা হয়।

ইশতেহার পাঠের পর গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ইলিয়াস কাঞ্চন, রিয়াজ, ফেরদৌস, ডিএ তায়েবসহ কাঞ্চন-নিপুণ পরিষদের সদস্যরা।

এ সময় এই পরিষদের কার্যকরী সদস্য পদপ্রার্থী চিত্রনায়ক ফেরদৌস বলেন, পরিবর্তন ও পরিবর্ধনের জন্য কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলের বিকল্প নেই। এ জন্যই আমরা এই পরিষদকে সমর্থন দিয়েছি।

তিনি বলেন, আমরা কথা দিচ্ছি শতভাগ সততার সঙ্গে আমাদের দেওয়া ইশতেহারের কথাগুলো কার্যকর করবো। ইশতেহারে যেসব কথা বলা হয়েছে, সেগুলো আমরা অনেক ভেবে চিন্তেই করেছি। ভালোবাসার তাগিদ থেকেই করেছি। আমরা শিল্পী ও তার মর্যাদায় বিশ্বাসী।

এ সময় ফেরদৌস বলেন, আমরা মুখে একটা বলে অন্যটা করার মানুষ নই। এর আগে আপনারা দেখেছেন, অনেকের কথা শুনেছি- সামনে এসে মুখে অনেক বড় বড় কথা বলেন, কিন্তু পেছনে গিয়েই অন্য একটা ফেস। এই দ্বিমুখী লোকদের আর ক্ষমতায় চাই না। দ্বিমুখী লোক যেন ক্ষমতায় না আসে, এই বিষয়ে আমাদের সচেতন থাকতে হবে।