ভোলার চরফ্যাশনে শ্বশুরবাড়িতে শাশ্বতী রায় চৈতীর রহস্যজনক মৃত্যুর সুষ্ঠু তদন্ত ও দ্রুত বিচার দাবি করে মানববন্ধন করেছেন তার সহপাঠীরা। শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন হয়।

চৈতী বরিশাল বিএম কলেজের গণিত বিভাগের স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থী ছিলেন। গত ৪ মার্চ ভোরে শ্বশুরবাড়িতে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনার পর থেকেই স্বজনরা দাবি করে আসছেন, শ্বশুরপক্ষ তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

মানববন্ধনে চৈতীর কলেজের সহপাঠী ছাড়াও চরফ্যাশন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও চরফ্যাশন সরকারি কলেজের সাবেক শিক্ষার্থীরাও অংশ নেন। চৈতী ওই দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেরও ছাত্রী ছিলেন।
মানববন্ধনে অংশ নেওয়া সহপাঠীরা জানান, দীর্ঘ ৯ বছর প্রেমের সম্পর্কের পর পারিবারিক সিদ্ধান্তে চরফ্যাশনের মানস মজুমদার শাওনের সঙ্গে চৈতীর বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই তার ওপর নেমে আসে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন।
চরফ্যাশন থানার ওসি মনির হোসেন মিয়া জানান, চৈতীর মৃত্যুর ঘটনায় আত্মহত্যার প্ররোচনা ও সহায়তার অভিযোগে তার স্বামী, শ্বশুর ও শাশুড়ির বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। ওই মামলায় স্বামী ও শ্বশুরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ওসি বলেন, তারা মামলাটি গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করছেন। এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা তা ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর নিশ্চিত হওয়া যাবে।