পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) চেয়ারম্যান ইমরান খানের প্রথম স্ত্রী জেমিমা গোল্ডস্মিথের সঙ্গে পাকিস্তানের নামকরা সাংবাদিক হামিদ মীরের একচোট হয়ে গেল বলা যায়। শুক্রবার পাকিস্তানের চলমান টালমাটাল রাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যেই এই দুই জন প্রকাশ্যে টুইটারে তর্কাতর্কিতে জড়ান। এ সময় জেমিমা বলেন, তিনি এবং তার সন্তানদের পাকিস্তানের রাজনীতির সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। খবর দি এক্সপ্রেস ট্রিবিউনের। 

শুরুটা অবশ্য করেছিলেন হামিদ মীর। তিনি টুইটারে জেমিমাকে খোঁচা মেরে লিখেছিলেন, লন্ডনস্থ নওয়াজ শরিফের বাসার বাইরে পিটিআইয়ের বিক্ষোভ অবশ্যই বন্ধ করা উচিত। আর পাকিস্তান মুসলিম লীগেরও (নওয়াজ) উচিত না জেমিমা খানের বাড়ির বাইরে তেমনটা করা। এ ছাড়া তিনি বলেন, যারা কাঁচের তৈরি বাড়িতে থাকেন তাদের অন্যদের উদ্দেশে পাথর ছুড়া উচিত না।  

হামিদ মীরের এই টুইট জেজিমার চোখ এড়ায়নি। পরে জেমিমা রিটুইট করে লিখেন, সম্মানের সঙ্গে বলছি আমার কিংবা আমার সন্তানদের পাকিস্তানের রাজনীতির সঙ্গে কোনো সম্পর্ক নেই। তারা (সন্তানরা) খুব সাধারণ মানুষ যারা সামাজিক মাধ্যমেও নেই। 

জেমিমার এই টুইটের উত্তরে মীর আবার লিখেন, আপনার কথা ঠিক আছে, কিন্তু ‘বিরোধী’ মানুষজন হয়তো বুঝতে চাইবে না। এরপর হামিদ মীর উল্লেখ করেন, ইমরান খানের ছেলে সুলাইমান খান তার মামা জ্যাক গোল্ডস্মিথের পক্ষ নিয়ে যুক্তরাজ্যে সাদিক খানের বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়েছে। কিন্তু পাকিস্তানের রাজনীতি থেকে দূরে আছে।   

হামিদ মীরের এই টিপ্পনির উত্তরে জেমিমা এই সাংবাদিককে থামতে বলেন। তিনি লিখেন, প্লিজ থামুন, এটা ছিল তার ছুটির দিনের কাজ। সে কিশোর বয়সের ছিল। 

হামিদ মীরের সঙ্গে এই বাদানুবাদের আগে একইদিন জেমিমা অভিযোগ করে বলেন, তার সাবেক স্বামীর রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীদের সমর্থকরা তাকে এবং তার সন্তানদের ইহুদি বিরোধী স্লোগান দিয়ে টার্গেট করতে শুরু করেছে এবং তিনি ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার সম্মুখীন হয়েছেন। 

এ সময় তিনি পাকিস্তানে থাকাকালীন যেমন ইহুদি বিদ্বেষী আক্রমণের শিকার হতেন তার কথা স্মরণ করেন। এ ছাড়া তার লন্ডনস্থ বাড়ির সামনে ১৭ এপ্রিল অনুষ্ঠেয় একটি বিক্ষোভের পোস্টার শেয়ার করে লিখেন, আমার বাড়ির বাইরে বিক্ষোভ, আমার সন্তানদের টার্গেট করে, সামাজিক মাধ্যমে ইহুদি-বিদ্বেষী গালাগাল… ঠিক যেন আমি ’৯০ সালের লাহোরে ফিরে গেছি। এই টুইটে পুরানাপাকিস্তান হ্যাশট্যাগও ব্যবহার করেন তিনি। প্রসঙ্গত, ইমরান সরকারের পতনের পর সামাজিক মাধ্যমে এটা ছিল তার প্রথম প্রতিক্রিয়া।   

উল্লেখ্য, ১৯৯৫ সালে জেমিমাকে বিয়ে করেছিলেন ইমরান খান। ২০০৪ সাল পর্যন্ত তাদের সংসার টেকে। তাদের সংসারে কাসিম খান এবং সুলাইমান খান নামে দুই ছেলে রয়েছে। বিবাববিচ্ছেদের পর থেকে সন্তানদের নিয়ে জেমিমা লন্ডনে আছেন। জেমিমা বিলিয়নিয়ার জেমস গোল্ড স্মিথের মেয়ে। ইহুদি ধর্ম ত্যাগ করে ইমরানকে বিয়ে করেছিলেন জেমিমা।