এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণের মায়ের জন্মদিন ছিলো গতকাল। দিনটিতে তাই কোনো শুটিং রাখেননি তিনি। মাকে সময় দিয়েছেন। পারিবারিক আয়োজনে মায়ের জন্মদিন উদযাপন করেছেন। ঘরোয়া সে আয়োজন শেষ করে সন্ধ্যার পর সমকাল কার্যালয়ে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন ফারিণ।

পিঙ্ক কালারের টপস আর হাতে সবুজ রঙ্গের ব্যাগ ঝুলিয়ে আসেন তিনি। হাতে একগুচ্ছ রজনীগন্ধাও ছিল।  এসেই বললেন, 'আপনাদের সঙ্গে দেখা করতে এলাম। আজ তো আমার মায়ের জন্মদিন। তাই একটু দেরি হয়ে গেল। আজ অমিতাভ রেজা ভাইয়েরও জন্মদিন। তাকেও উইশ করতে যাবো।'

'অসংকোচ প্রকাশের দুরন্ত সাহস' নিয়ে ১৭ বছরের নাতিদীর্ঘ পথ পেরিয়ে আঠারো এসেছে সমকালে।  এ পথযাত্রায় পাথেয় হয়েছে শনিবার সমকাল কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আনন্দ সম্মিলনে অভ্যাগত সুধীজনের দোয়া ভালোবাসা আশীর্বাদ শুভাশীষ। পত্রিকা অফিসের দৈনন্দিন ব্যস্ততার মধ্যে দিনটি ছিল ব্যতিক্রমের।

ফারিণ যখন সমকালে আসেন ততক্ষণে ফুরিয়েছে মানুষের মুখরতা। নিউজরুম ব্যস্ত হয়ে পড়েছে পরের দিনের খবরপত্র বের করার যজ্ঞে। ফারিণ তাই বেশি সময় কাটালেন না। শুভেচ্ছা জানানোর আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে দ্রুত দিলেন ছুট।

শনিবার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এ দিনে  রাজধানীর তেজগাঁওয়ে টাইমস মিডিয়া ভবনে সমকালে মন্ত্রী-এমপি, রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, শিল্পপতি, ব্যবসায়ী, লেখক, কবি, শিল্পী, চলচ্চিত্রকার, সামরিক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা, পেশাজীবী, ক্রীড়া ও বিনোদন জগতের তারকাসহ সমাজের স্বনামধন্য ব্যক্তিরা এসেছিলেন শুভেচ্ছা জানাতে। নক্ষত্রের ছটায় সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আলোয় আলোয় ভরে ছিল সমকালের আঙিনা।