'আমরা খুব করে চেয়েছিলাম কলকাতায় ছবিটি মুক্তি দিতে। কিন্তু দুই দেশের মধ্যকার যে চুক্তি বা নিয়ম, সেটা জটিল। বিভিন্ন দেশে সহজে মুক্তি দিতে পারলেও কলকাতায় পারিনি। ' মাস খানেক আগেও কলকাতায় 'হাওয়া' ছবিটি মুক্তি দিতে না পারায় এভাবেই আক্ষেপ প্রকাশ করছিলেন এর নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমন।

সে সময় কলকাতায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে 'হাওয়া' দেখতে দর্শকদের উপচে পড়া ভিড় দেখে সে আক্ষেপের মাত্রা বেড়ে যায় বহুগুণ। তাই পরিচালক জানান, ওখানে মুক্তি দিতে পারলে বাংলাদেশের মতোই সাড়া পেতো; ছবিটি দেখার জন্য কলকাতার দর্শকরা উন্মুখ হয়ে বসে আছে।

ছবিটির অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীও সে সময় আশাবাদ করেছিলেন বাঁধার দেয়াল উঠে যাবে। হাওয়া কলকাতার দর্শকদের কাছে আসবেই আসবেই। 

অভিনেতার সে কথাই এবার বাস্তবে রুপ পেল। ভারতে সিনেমাটির পরিবেশনের দায়িত্বে থাকা রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট এক টুইটে জানিয়েছে, ১৬ ডিসেম্বর কলকাতা ও পশ্চিমবঙ্গের সিনেমা হলে মুক্তি পাচ্ছে সিনেমাটি। এরপর ভারতজুড়েই সিনেমাটি মুক্তি দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

সিনেমার নির্বাহী প্রযোজক অজয় কুণ্ডুও জানালেন একই তথ্য। তিনি বললেন, হাওয়া  সাফটা চুক্তির আওতায় ভারতে মুক্তির প্রক্রিয়া চলছে। মুক্তির দিনক্ষণ চূড়ান্ত হয়েছে। তবে এখনও হাতে আসেনি হলের তালিকা। 

ভারতজুড়ে 'হাওয়া' মুক্তির খবরে উচ্ছ্বাসের শেষ নেই চঞ্চল চৌধুরীর। তিনি বলেন, 'আমি যখন কলকাতায় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উৎসবে যাই । তখন হাওয়ার দর্শক চাহিদা দেখে মনে হয়েছিল যে ছবির প্রতি দর্শকদের এতো টান সে ছবি এখানে মুক্তি পাবেই। প্রত্যাশা করেছিলাম হাওয়ার মুক্তি নিয়ে যতটা জটিলতা আছে তা কেটে যাবে। অবশেষে তাই হয়েছে। কলকাতার দর্শকদের কাছে হাওয়া পৌছে যাচ্ছে আগামী ১৬ ডিসেম্বর। এই খবর পাওয়ার পর নিজের কাছে হালকা লাগছে।'

চঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে সুর মিলিয়ে নির্মাতা মেজবাউর রহমান সুমনও জানালেন, কলকাতায় দর্শকদের কাছে ছবিটি পৌছাচ্ছে এটা আমার কাছে উচ্ছ্বাসের খবর। সেখানকার দর্শকদের কাছেও আনন্দের খবর। প্রতিবেশি দেশ এমনকি বাংলাভাষাভাষী কলকাতায় মুক্তি দিতে না পরার একটা আক্ষেপ ছিলো সেটা বুক থেকে নেমে গিয়েছে। আশা করি কলকাতার দর্শকদের কাছেও আমাদের হাওয়া আনন্দময় হবে।

হাওয়া ছবিটি গত ২৯ জুলাই বাংলাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পায়। আগামী বছরের অস্কারে সেরা আন্তর্জাতিক ফিচার চলচ্চিত্রের জন্য বাংলাদেশ থেকে মনোনীত হয়েছে ছবিটি।  

ছবির গল্প মাঝসমুদ্রে গন্তব্যহীন একটি মাছ ধরার ট্রলারে আটক মাঝিমাল্লা এবং এক রহস্যময় বেদেনিকে ঘিরে কাহিনি আবর্তিত হয়েছে। মেজবাউর রহমান সুমনের কাহিনি এবং সংলাপে চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য লিখেছেন মেজবাউর রহমান সুমন, সুকর্ণ সাহেদ ধীমান ও জাহিন ফারুক আমিন।

‘হাওয়া’ ছবিতে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী, নাজিফা তুষি, শরিফুল রাজ, সুমন আনোয়ার, নাসির উদ্দিন খান, সোহেল মণ্ডল, রিজভী রিজু, মাহমুদ হাসান ও বাবলু বোস। চিত্রগ্রহণ করেছেন কামরুল হাসান খসরু, সম্পাদনা সজল অলক, আবহ সংগীত রাশিদ শরীফ শোয়েব এবং গানের সংগীতায়োজন করেছেন ইমন চৌধুরী।