ব্রেক্সিট: সরকারের বিরুদ্ধে গেলে এমপিদের বহিষ্কারের হুমকি

প্রকাশ: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৯     আপডেট: ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন— গেটি ইমেজেস

যুক্তরাজ্যের ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির এমপিরা যাতে চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটের (নো ডিল ব্রেক্সিট) বিষয়ে সরকারের বিরোধিতা না করে সে জন্য তাদের সতর্ক করে দেওয়া হয়েছে।

এমনকি কনজারভেটিভ পার্টির এমপিরা 'নো ডিল ব্রেক্সিট'-এর বিপক্ষে ভোট দিলে দল থেকে তাদের সাময়িক বহিষ্কারের হুমকিও দেওয়া হয়েছে বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এতে আরও হয়েছে, বিরোধী লেবার পার্টির এমপিরা যখন সরকারের 'নো ডিল ব্রেক্সিট'-এর উদ্যোগ থামানোর পরিকল্পনা করছে, তখনই কনজারভেটিভ এমপিদের উদ্দেশ্য সরকারের পক্ষ থেকে এমন সতর্কতা দেওয়া হলো। আর এমন কিছু ঘটলে সেক্ষেত্রে বহিষ্কৃতরা আগামী নির্বাচনে কনজারভেটিভ পার্টির প্রার্থী হতে পারবেন না।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের হুইপ অফিস সূত্রে জানা গেছে, ব্রেক্সিট নিয়ে সরকার যে দরকষাকষি করছে বিদ্রোহীরা সেটি ভেস্তে দিতে পারেন। এক্ষেত্রে হুইপ অফিসের কাজ হচ্ছে, সরকারের চিন্তাধারা অনুযায়ী এমপিদের ভোট নিশ্চিত করা।

কোনো চুক্তি ছাড়া ব্রিটেন যাতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বের না হয় সেজন্য একদল এমপি পার্লামেন্ট একটি আইন আনতে যাচ্ছেন। তাদের এই উদ্যোগ সফল হবে, যদি ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির কিছু এমপি সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দেয়।

'নো ডিল ব্রেক্সিট' থামানোর জন্য বিরোধী লেবার পার্টির ছায়া মন্ত্রিসভা যখন বৈঠক করতে যাচ্ছে, ঠিক তখনই সরকারের বিরোধিতা না করার ব্যাপারে ক্ষমতাসীন দলের এমপিদের হুঁশিয়ারি দেয়া হলো।

আগামী ৩১ অক্টোবর ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। সেটি চুক্তি করে হোক বা চুক্তি ছাড়াই হোক। এ বিষয়ে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন নিজের প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছেন।

এর আগে রোববার প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার হুইপদের সাথে নিজ দলের এমপিদের সম্ভাব্য বিরোধিতা নিয়ে আলোচনা করেছেন।

কনজারভেটিভ হুইপ অফিসের একটি সূত্র বলেছে, 'মঙ্গলবার তাদের দলের সংসদ সদস্যরা যদি সরকারকে ভোট না দেয়, তাহলে তারা সরকারের দরকষাকষির অবস্থানকে ধ্বংস করবে এবং পার্লামেন্টের নিয়ন্ত্রণ জেরেমি করবিনের হাতে তুলে দেবেন।'