সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক বিমান উড়ল আকাশে

প্রকাশ: ৩০ মে ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

আকাশে এমন একটি বিমান উড়বে, যাতে লাগবে না কোনও জীবাশ্ম জ্বালানি! বিজ্ঞানীদের এ স্বপ্ন ছিল বহুদিনের। অবশেষে সেই স্বপ্ন যেন পূরণ হল। আকাশে উড়লো সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক বিমান। বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বড় পুরোপুরি বৈদ্যুতিক এ যাত্রীবাহী বিমান বৃহস্পতিবার উড়েছে ওয়াশিংটনের আকাশে। 

বিমানটির নাম দেওয়া হয়েছে ই-ক্যারাভ্যান। ওয়াশিংটনের মোজেজ এয়ারপোর্ট থেকে প্রথম দিনের সফল উড্ডয়নে ৯ জন যাত্রী বহন করে বিমানটি। এটি প্রায় ৩০ মিনিট আকাশে ছিল। 

৭৫০ হর্সপাওয়ার ইঞ্জিন ক্ষমতার বিমানটি যৌথভাবে তৈরি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাগনিক্স ও এরোটেক নামে দুটি কোম্পানি। সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক বিমান তৈরি করে  এই দুই কোম্পানি এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রিতে বিশাল বিপ্লব এনে দিল। 

বৈদ্যুতিক বিমানের জন্য ২০০৯ সাল থেকেই বিশেষ ইঞ্জিন বানিয়ে আসছে ম্যাগনিক্স। এখনও পর্যন্ত তারা বহু ইলেকট্রিক ইঞ্জিন বানিয়েছে। তবে তাদের বানানো সবচেয়ে শক্তিশালী ইলেকট্রিক ইঞ্জিন ম্যাগনি৫০০। এই ইঞ্জিনটিই এ বিমানে ব্যবহার করা হয়েছে। অন্যদিকে, এরোটেক কোম্পানির ইঞ্জিনিয়াররা বিমানের নকশা তৈরি করেছেন এবং বিমানটির প্রথম উড্ডয়নও হয়েছে এই এরোটেকের তত্ত্বাবধানেই।

ম্যাগনিক্স কোম্পানির সিইও রোয়ে গানজারস্কি বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে বলেন, আইকনিক ই-ক্যারাভ্যান এভিয়েশন শিল্পকে আরও এক ধাপ এগিয়ে নিল। এই বিমানের মাধ্যমে কোনোরকম কার্বন নিঃসরণ ছাড়াই স্বল্প দুরত্বে মালামালও পরিবহন সম্ভব।

বিজ্ঞানীরা বলছেন, এ ধরনের বৈদ্যুতিক বিমান ব্যবহার করলে যেমন জীবাশ্ম জ্বালানি বাঁচবে, তেমনি পরিবেশ দূষণ কম হবে। আবার যাতায়াতের খরচও কমবে। ভবিষ্যতের পথে তাই একটা বড় পদক্ষেপ এই ই-ক্যারাভ্যান। সূত্র : বিবিসি ও সিএনবিসি।