ঢাকা সোমবার, ২০ মে ২০২৪

ব্ল্যাকপিঙ্ক কোরিয়ান ওয়েভে বিশ্ব মাত

ব্ল্যাকপিঙ্ক কোরিয়ান ওয়েভে বিশ্ব মাত

ব্ল্যাকপিঙ্ক

মাজেদ হোসেন টুটুল

প্রকাশ: ১৯ অক্টোবর ২০২২ | ১২:০০

২০১২ সালের ঘটনা। হঠাৎ বিশ্বব্যাপী ঝড় ওঠে কোরিয়ান ওয়েভের। দক্ষিণ কোরিয়ান গায়ক সাই তাঁর গ্যাংনাম স্টাইল দিয়ে তাবৎ বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেন। শুধু সংগীতাঙ্গন নয়, দুনিয়াজুড়ে কোরিয়ান মিউজিকের প্রধান অনুঘটক হিসেবেই কাজ করে সাইয়ের গ্যাংনাম স্টাইল। তাঁর এই সাফল্যকে বিবেচনা করা হয় 'কোরিয়ান ওয়েভ' বা 'হ্যালিউ' হিসেবে। সেই কোরিয়ান ওয়েভের ধারাবাহিকতায় আগমন ঘটে ছেলেদের ব্যান্ড দল বিটিএস আর মেয়েদের দল ব্ল্যাকপিঙ্কের। বিশেষ করে কোরিয়ান মিউজিকের মূর্তপ্রতীক হয়ে বিশ্বের কোটি কোটি কিশোর, তরুণ, যুবকের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ ঘটিয়ে আগমন ঘটে চার তরুণী নিয়ে গড়া সংগীতের দল 'ব্ল্যাকপিঙ্ক'-এর। ২০১৬ সালে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলে জিসু, জেনি, লিসা আর রোজে নামের সদ্য কৈশোর পেরোনো চার তরুণী ওয়াইজি এন্টারটেইনমেন্টের মাধ্যমে গঠন করেন ব্ল্যাকপিঙ্ক। কে-পপ, বাবলগাম পপ, ইলেকট্রো পপ দিয়ে সংগীতের ভুবনে তাঁরা আলোড়ন তোলেন। আর বিশ্ববাসীকে তাঁরা পপসংগীতের একটি নতুন ধারার সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন। ব্যান্ড দল ব্ল্যাকপিঙ্ক এরই মধ্যে কোচেল্লা মিউজিক ফেস্টিভ্যালে পারফর্ম করেছে। গান গেয়েছে লেডি গাগা ও সেলেনা গোমেজের সঙ্গে। ২০১৬ সালের আগস্টে তাদের প্রথম একক 'স্কয়ার ওয়ান' রিলিজ করার মুহূর্ত থেকেই শ্রোতাদের হৃদয় দখল করে। তারপর থেকে তাদের 'উউট-উট উউট-উট' এবং 'কিল দিস লাভ'সহ প্রতিটি গানই আন্তর্জাতিকভাবে সংগীতাঙ্গনে জায়গা করে নেয়। এই সাফল্যে উচ্ছ্বসিত হয়ে ২০১৯ সালে ব্ল্যাকপিঙ্কের শিল্পীরা কে-পপশিল্পী হয়ে ওঠেন। এরই ধারাবাহিকতায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় সংগীত উৎসব কোচেল্লাতে পারফর্ম করার জন্য আমন্ত্রিত হন। ব্ল্যাকপিঙ্কের সেই পরিবেশনা সংগীত চার্টের শীর্ষে ছিল এবং বেশ কয়েকটি মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার অর্জন করে নেয়। ক্রমাগত সাফল্য সত্ত্বেও ব্ল্যাকপিঙ্ক লাইভ শো করেনি বা করার সুযোগ হয়ে ওঠেনি। অবশেষে ২০২১ সালের জানুয়ারিতে তারা প্রথম লাইভ শো 'দ্য শো' করে। সেই লাইভ শো প্রত্যক্ষের জন্য দর্শক-শ্রোতা হুমড়ি খেয়ে পড়েন। সেটি দেখতে না পেয়ে হাজার হাজার মানুষ অনুষ্ঠানস্থলের বাইরে দাঁড়িয়ে থাকেন। এ পর্যন্ত তাদের পাঁচটি একক অ্যালবাম, একটি স্টুডিও অ্যালবাম ও দুটি এক্সটেন্ডেড অ্যালবাম প্রকাশিত হয়েছে। সবক'টিই সংগীতজগতে সাড়া ফেলে। দলটির চার সদস্য লিসা, জিসু, জেনি ও রোজে প্রত্যেকেরই রয়েছে স্বতন্ত্র ভূমিকা। তাই তাঁদের এই দলে নেই কোনো দলনেতা বা লিডার। সদস্যদের সবাই যাঁর যাঁর স্বকীয়তা ধরে রেখেছেন। তাঁরা চারজন মিলে কোরিয়া মিউজিক ফেস্টিভ্যালে পারফর্ম করে আলোড়ন তোলেন। সংগীতের ভুবনে ব্ল্যাকপিঙ্কের প্রভাব বিশ্বব্যাপী ক্রমাগত বাড়তে থাকে। তাদের পোশাক নির্বাচন, গান প্রস্তুত আর কোরিওগ্রাফি বেশ সাড়া ফেলে। এই দলটির চার সদস্যের প্রত্যেকে বিখ্যাত বিলাসবহুল ব্র্যান্ডের বিশ্বদূত হিসেবেও কাজ করেছেন। ব্ল্যাকপিঙ্কের অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেল সম্প্রতি ৭৭.৫ মিলিয়ন সাবস্ট্ক্রাইবার ছাড়িয়ে যায়, যা অনলাইন প্ল্যাটফর্মে তাদের সবচেয়ে বেশি ভক্তের শিল্পী করে তুলেছে।

আরও পড়ুন

×