সম্প্রতি বিশ্ববিখ্যাত গল্প গালিভার'স ট্রাভেলসের লেখক জোনাথন সুইফটের তরুণ বয়সের প্রতিকৃতি আঁকা একটি বিরল চিত্রকর্ম নিলামে ৮১ হাজার পাউন্ডেরও বেশি দামে বিক্রি হয়েছে। গত দুই শতাব্দীর মধ্যে প্রথমবারের মতো নিলামে ওঠে চিত্রকর্মটি। ওই চিত্রকর্মে ১৬ বছর বয়সী সুইফটের মুখশ্রী ফুটে উঠেছে, তখন তিনি ডাবলিন কলেজের শিক্ষার্থী ছিলেন বলে মনে করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, চিত্রকর্মটি ১৬৮২ সালের দিকে আঁকা হয়েছিল। আর সতেরো শতকের আইরিশ শিল্পী থমাস পুলি চিত্রকর্মটির স্রষ্টা।
বুধবার এডিনবরায় শিল্পকর্ম নিলামকারী প্রতিষ্ঠান লিয়ন অ্যান্ড টার্নবুলের একটি অনলাইন নিলামে ক্রেতার প্রিমিয়ামসহ ৮১ হাজার ২৫০ পাউন্ডে চিত্রকর্মটি বিক্রি হয়। এক ব্যক্তিগত সংগ্রাহক এটি কিনেছেন। ধারণা করা হচ্ছিল, চিত্রকর্মটি ৩০ থেকে ৫০ হাজার পাউন্ডে বিক্রি হবে। তবে নিলামে এ দাম মুহূর্তেই ছাপিয়ে যায়। আয়ারল্যান্ডের ডাবলিনে ১৬৬৭ সালের ৩০ নভেম্বর জন্মগ্রহণকারী অ্যাংলো-আইরিশ লেখক জোনাথন সুইফট ১৭২৬ সালে প্রকাশিত গালিভার'স ট্রাভেলসের জন্য বিশ্বখ্যাত হয়ে রয়েছেন। এটিকে ইংরেজি সাহিত্যের ধ্রুপদি গ্রন্থ মনে করা হয়। তাঁর আরও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ গ্রন্থ রয়েছে। এর মধ্যে এ টেল অব এ টাব (১৭০৪), অ্যান আরগুমেন্ট অ্যাগেইনস্ট অ্যাবোলিশিং ক্রিশ্চিয়ানিটি (১৭০৮) ও এ মডেস্ট প্রোপোজাল (১৭২৯) উল্লেখযোগ্য। চিত্রকর্মটি ১৮০১ সালে কাউন্টি ডাউনের বিশপ থমাস পার্সির অধীনে ছিল, যিনি এটিকে 'ডিন সুইফটের একটি ছোট প্রতিকৃতি' হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন। ১৮৬৭ সালে প্রথম সাউথ কেনসিংটনে এটি প্রদর্শিত হয়, তারপর পরবর্তী শত বছর ধরে এটি জনসম্মুখে আসেনি।
১৮৯৮ সালে স্যার লেসলি স্টিফেন, ডিকশনারি অব ন্যাশনাল বায়োগ্রাফিতে লিখেছেন, 'এই চিত্রকর্মটির বর্তমান অবস্থান অজানা।' এটি ১৯৬৭ সালের দিকে থমাস পার্সির এক বংশধরের সংগ্রহে পুনরায় পাওয়া যায় এবং এ সময়ে এটি সুইফট বিশেষজ্ঞদের নজরে আসে এবং পুলিকে এর স্রষ্টা হিসেবে উল্লেখ করা হয়। এ চিত্রকর্মটি ১৯৯৯ সালে আয়ারল্যান্ডের ন্যাশনাল লাইব্রেরিতে একটি প্রদর্শনীতে দেখানো হয়েছিল।
গ্রন্থনা ::শাহেরীন আরাফাত