কয়েক দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অভিনেত্রী তিশার কয়েকটি ছবি ভাইরাল। যদিও ভাইরাল বলতে আজকাল নেতিবাচক কিছু বোঝানো হয়। কিন্তু তিশার বেলায় তা পজিটিভ। ভাইরাল হওয়া ছবিগুলোতে দেখা যায়- ক্লান্ত মুখে রিকশা চালাচ্ছেন। অন্য একটি ছবিতে যাত্রী নিয়ে ছুটছেন। আবার রিকশার গ্যারেজে আড্ডা দিচ্ছেন। এই ছবিগুলো আসছে কোরবানির ঈদের জন্য নির্মিত 'রিক্সা গার্ল' নাটকের স্থিরচিত্র; যা প্রকাশ্যে আসতেই ভাইরাল। এমন চরিত্রে অভিনয়ের জন্য প্রশংসায় ভাসছেন তিশা। ছবিগুলোর সূত্র ধরেই কথা হয় তাঁর সঙ্গে। শুরুতেই বলেন, 'ওটা কিন্তু আমি নই, শিখা। নাটকটিতে শিখা হয়ে উঠতে যা যা করার দরকার সবই করেছি। এই নাটকে আমাকে যিনি শিখা সাজিয়েছেন, তাঁকে ধন্যবাদ।' তিশা বলতেই থাকেন-''সব ধরনের কাজে নিজেকে প্রমাণ করতে চাই। এই নাটকের শিখা চরিত্র একটা বোধের জায়গা থেকে করা। সমাজের শ্রমজীবী নারীদের জীবনসংগ্রামের কথা আমরা কজনইবা জানি। এই শহরে যেসব নারী প্রতিদিন লড়াই করে জীবিকা নির্বাহ করছেন, তাঁদের প্রতি এক ধরনের শ্রদ্ধাবোধ থেকে কাজটি করেছি। এই ঈদে 'রিক্সা গার্ল' নিঃসন্দেহে অন্যরকম আবেদনের একটি কাজ হবে।''
ঈদের আগের এই সময়ে ছোট পর্দার অভিনয়শিল্পীদের ব্যস্ততা বেড়ে যায়। তাই জানতে চাই, আসছে ঈদে কতগুলো নাটকে কাজ করছেন তিশা?
'আসলে সংখ্যা গুনে আর কাজ করা হয় না। রোজার ঈদের পর থেকে বেশ কয়েকটি কাজ করেছি, যার প্রতিটি গল্পই একটু আলাদা। ফলে বলতে পারি, সংখ্যায় নয়, মানের দিক থেকে প্রতিটি নাটকই দর্শকের কাছে ভালো লাগবে।'
শুধু টিভি নাটকে নয়, তিশা এখন অভিনয় করছেন ওয়েব সিরিজেও। যদিও সংখ্যায় তা খুবই কম। তিশা বলেন, 'শিকল' এবং 'লোহার তরী' নামে ওয়েব সিরিজ করেছিলাম। আমার বিশ্বাস, এই দুটি সিরিজ দেখলে দর্শক বুঝতে পারবেন কেন এতে কাজ করেছি। গল্পে এক ধরনের সম্মোহনী শক্তি আছে; যা দর্শকেরও ভালো লাগতে বাধ্য। গেল রোজার ঈদে প্রচার হয় তানজিন তিশা অভিনীত ওয়েব ফিল্ম 'সাহসিকা'; যা দারুণ আলোচিত হয়। নাটক, টেলিছবি, ওয়েব সিরিজ এবং ওয়েব ফিল্মে অভিনয় করলেও তানজিন তিশাকে এখনও পাওয়া যায়নি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রে। আষাঢ়ের দুপুরে তিশা জানালেন তিনিও বাণিজ্যিক সিনেমায় অভিনয় করতে চান। তা শুধু নায়িকা হিসেবে নয়, সবাই যেন তাঁকে অভিনেত্রী হিসেবে মনে করেন। তিশার ভাষ্য, 'দেখুন, একজন অভিনয়শিল্পী সব সময় চায় সিনেমায় অভিনয় করতে। আমিও বাণিজ্যিক ধারার সিনেমায় অভিনয় করতে চাই। এরই মধ্যে অনেকেই আমাকে সিনেমায় অভিনয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন। আমি রাজি হইনি। কারণ, টিভি নাটকে যে ধরনের গল্পে অভিনয় করেছি, সেই ধরনের গল্পের সিনেমায় নিজেকে দেখতে চাই না। ফলে অপেক্ষায় রয়েছি ভালো গল্পের। এখন বেশ ভালো ভালো গল্প নিয়ে সিনেমা হচ্ছে। আশা করছি, শিগগিরই নতুন ক্যানভাসে যাত্রা শুরু করব।' তিশা যে সিনেমায় কাজ করবেন গল্প যে তাঁর পছন্দও হয়েছে, সে ইঙ্গিত পাওয়া গেল তাঁর কথায়। কথায় কথায় জানতে চাইলাম এ বছরই কি বাণিজ্যিক সিনেমায় দেখা যাবে? তিশার কৌশলী উত্তর- 'আমি কিন্তু চূড়ান্ত কিছুই বলিনি। বলেছি ভালো ভালো গল্পের চিত্রনাট্য এসেছে। কাজ করলে তো আর গোপনে করব না। করলে সবাই জানবেই। আমিই সবাইকে বলব।'
সিনেমায় তিশা আসুক বা না আসুক, তিশা যে এখন বেশ মেপে মেপে পা ফেলছেন তা একেবারে পরিস্কার। ক্যারিয়ারের এই সময়ে এসে বেশ পরিণত তিশা। কাজের বেলায় ভুল সিদ্ধান্ত নিতে চান না এক রত্তিও। অন্যদিকে ছোট ও বড় পর্দার অনেক তারকারই ব্যক্তিগত ইউটিউব চ্যানেল আছে। তাঁদের কেউ কেউ ইউটিউব কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে সিলভার, আবার কেউ কেউ গোল্ডেন প্লে বাটনও পেয়েছেন। গত বছর করোনাকালে ইউটিউব চ্যানেল খুলেছেন তানজিন তিশা। নাম 'তানজিন তিশা অফিশিয়াল'। সম্প্রতি সেই চ্যানেলের জন্য ইউটিউব কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে 'সিলভার প্লে বাটন' পেলেন তানজিন তিশা। তিনি বলেন, 'করোনাকালে ঘরেই ছিলাম। চিন্তা করলাম, বাসায় আছি। একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলি। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটানো, লকডাউনে জন্মদিন, নিজের মেকআপ করাসহ নানা ঘটনার স্মৃতি ভিডিও করে চ্যানেলে রাখা যাবে। সেভাবেই করেছিলাম।' মিডিয়ায় যাঁরা কাজ করেন, তাঁদের অনেকেই এখন ইউটিউব চ্যানেল থেকে বাড়তি আয়ও করছেন। এ ব্যাপারে তিশার মন্তব্য, 'যাঁরা চ্যানেলের জন্য সময় বের করে পরিকল্পনা করে কনটেন্ট তৈরি করছেন, তাঁরা আয় করতে পারছেন। সেটি তো আমি করতে পারছি না। এখন আমার পক্ষে সম্ভ্ভবও নয়। কারণ, ওই সময় আমার হাতে নেই।'