কিশোরগঞ্জের ভৈরবে দুই সন্তানকে বিক্রি করে দেওয়ার প্রতিবাদ করায় স্ত্রী শেফালী বেগমকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করেছে স্বামী শেখ খলিলুর রহমান। এ ঘটনার পর পুলিশ খলিলুরকে গ্রেপ্তার করেছে।

শনিবার শহরের পঞ্চবটী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শেফালীর অভিযোগ, তার স্বামী দুই শিশুসন্তানকে দু'বারে ৩ লাখ ২০ হাজার টাকায় অন্যত্র বিক্রি করে দেয়। তারা শহরের পঞ্চবটী এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকেন। তবে তাদের মূল বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর ও চট্টগ্রামের পটিয়া এলাকায়।

শেফালী বেগম বলেন, আমার স্বামী ২০২১ সালে তাদের শিশুসন্তান আবদুল্লাহকে ২ লাখ টাকায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল এলাকায় বিক্রি করে দেয়। এরপর গত দেড় মাস আগে আরও এক সন্তান শিশু জলিলকে আখাউড়ার মাজারসংলগ্ন এলাকায় ১ লাখ ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করে।

তিনি আরও বলেন, এ নিয়ে কিছুদিন ধরে স্বামীর সঙ্গে আমার ঝগড়া চলছিল। সন্তান বিক্রির প্রতিবাদ করায় শনিবার দুপুরে আমার মাথায় লাঠি দিয়ে আঘাত করে স্বামী। পরে পুলিশে ফোন দিই।

অভিযুক্ত খলিলুর রহমানের দাবি, তারা আমার সন্তান না। এখন শেফালীর কোলে যে সন্তান আছে, এই সন্তানটি আমার। সন্তান বিক্রির টাকার ভাগ নিয়েছে শেফালি।

ভৈরব শহর পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মো. মনিরুজ্জামান জানান, খলিলুর একজন ভবঘুরে ও প্রতারক। স্ত্রী তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দিয়েছে।