তরুণ নির্মাতা নুহাশ হুমায়ূনের স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমা 'মশারি' এরই মধ্যে দশটিরও বেশি আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে অংশ নিয়ে পুরস্কৃত হয়েছে। পাশাপাশি এবার সিনেমাটি প্রযোজনা করবেন দুই অস্কার বিজয়ী নির্মাতা ও অভিনেতা জর্ডান পিল ও অভিনেতা রিজ আহমেদ। নন্দনের এই আয়োজনে নুহাশ জানিয়েছেন 'মশারি' নির্মাণের কথা...
'আমার জীবনটা বদলে গেল। টিম মশারিকে ধন্যবাদ ইতিহাস তৈরি করার জন্য'- অস্কারজয়ী দু'জন 'মশারি'তে যুক্ত হওয়ার খবর সম্প্রতি প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক চলচ্চিত্রবিষয়ক বিনোদন সাময়িকী 'ভ্যারাইটি'। সেই খবর নিজের ফেসবুক আইডিতে শেয়ার করে এভাবেই 'মশারি' টিমকে ধন্যবাদ দিলেন তরুণ নির্মাতা নুহাশ হুমায়ূন। আসলেই একের পর এক সুসংবাদই নুহাশকে পৌঁছে দিচ্ছে সাফল্যের নতুন সিঁড়িতে। বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক উৎসবে প্রশংসার পাশাপাশি পুরস্কারও পেয়েছে 'মশারি'।
আসন্ন অস্কার আসরে কোন চলচ্চিত্র মনোনয়ন পেতে পারে- সেই অনুমান করছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। এই দৌড়ে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে নুহাশ হুমায়ূন পরিচালিত স্বল্পদৈর্ঘ্য সিনেমাটি। ভ্যারাইটি তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, 'মশারি' অস্কারের এ ক্যাটাগরিতে যোগ্যতা অর্জনকারী প্রথম বাংলাদেশি চলচ্চিত্র। গত বছর অস্কারের লাইভ অ্যাকশন শর্টফিল্ম শাখায় পুরস্কার জিতেছিল যুক্তরাজ্য ও নেদারল্যান্ডসের সিনেমা 'দ্য লং গুডবাই'। ভ্যারাইটির সম্ভাব্য অস্কার তালিকাতেও ছিল সিনেমাটি। অস্কার কোয়ালিফাই চলচ্চিত্র উৎসবগুলোয় বিজয়ী চলচ্চিত্রগুলো সরাসরি অস্কারের লাইভ অ্যাকশন শর্ট ফিল্ম শাখায় মনোনয়নযোগ্য বলে বিবেচিত হয়। অস্কার কোয়ালিফাই চলচ্চিত্র উৎসব যুক্তরাষ্ট্রের সাউথ বাই সাউথ ওয়েস্ট ও আটলান্টা। এই দুটি উৎসব থেকেই গ্র্যান্ড জুরি পুরস্কার জিতেছে 'মশারি'। সব মিলিয়ে বলা যায় প্রথম বাংলাদেশি নির্মাতা হিসেবে অস্কার হাতছানি দিচ্ছে নুহাশকে। যে সিনেমা নিয়ে বিশ্বজুড়ে এত আলোচনা, সেই চলচ্চিত্র নির্মাণের গল্প কেমন ছিল- জানতে চাইলে নুহাশ বলেন, 'মশারি' স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রটি নির্মাণ করতে ১০ বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে। ভবিষ্যৎ পৃথিবীর গল্পটি ১০ বছর আগে মাথায় আসে। কিন্তু সেই সময় এমন একটি ফিকশন নির্মাণের জন্য যেমন সাহস করতে পারিনি, তেমনি সাপোর্টও ছিল না। যখন নির্মাণ শুরু করি তখনও অনেক ক্রিয়েটিভ সাপোর্টের অভাববোধ করেছি। আমরা আগে কখনও হরর ফিল্ম করিনি! বাংলাদেশি হরর একটি বিরল ঘটনা, তাই অনেক গবেষণা এবং প্রস্তুতি ছিল। তবুও আমি বলব, যখন আমরা সেটে হাজির হলাম সবাই নার্ভাস ছিলাম! শেষ পর্যন্ত কাজটি শেষ হয়েছে। চলচ্চিত্রটি নিয়ে আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও বেশ সাড়া পাচ্ছি। পাশাপাশি এটি অনলাইনে মুক্তির পর বাংলাদেশের দর্শকরাও ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানাচ্ছেন। 'মশারি'র সঙ্গে সম্প্রতি যুক্ত হয়েছেন অস্কারজয়ী দুই ব্যক্তিত্ব আমেরিকান অভিনেতা-নির্মাতা জর্ডান পিল ও ব্রিটিশ অভিনেতা র‌্যাপার রিজ আহমেদ। নির্বাহী প্রযোজকের ভূমিকায় রয়েছেন তাঁরা। অস্কারজয়ী দু'জন মানুষ এ চলচ্চিত্রের সঙ্গে যুক্ত হওয়া আমার জন্য পরম পাওয়া। পুরস্কার আসুক বা না আসুক 'মশারি' নিয়ে যে উত্তেজনা, একটা কিছুর সূচনা হলো; তা ভালো লাগছে। এটি আমাকে পরবর্তী কাজের ব্যাপারে উৎসাহ জোগাচ্ছে।' 'মশারি' গল্প ভাবনা কীভাবে এলো? ''ছোটবেলায় 'মশারি'র মধ্যে গেলে আমার ভয় লাগত। মনে হতো বাইরে থেকে হয়ত কিছু একটা আসছে! মশারির বাইরে মনে হতো চলন্ত প্রাণীদের ছায়া কল্পনা করতাম। ছোটবেলা সেই ঘটনাগুলো নিয়ে ভোবছিলাম ওই ফ্যান্টাসি নিয়ে যদি কিছু বানানো যায়। নতুন একটি জগৎ, যেখানে মশারির ভেতরে আশ্রয়। বাইরে অন্য কিছু। রিয়েলিস্টিক সিনেমা অনেক বানানো যায়, কিন্তু ফ্যান্টাসি, হরর, কাল্পনিক, রূপকথা টাইপের কিছু একটা!'' চিত্রনাট্যের স্টার্ট-অফ পয়েন্ট কী ছিল? 'আমরা সবসময়ই চলচ্চিত্রে দেখি পৃথিবীর শেষ, নিউইয়র্ক বা লন্ডনে এলিয়েন আক্রমণ বা দানব অ্যাপোক্যালিপ্স। কিন্তু বাংলাদেশে কী হচ্ছে? সেখানে বেঁচে যাওয়াদের গল্প কী? সেই প্রশ্ন এবং এর থেকে আসা উত্তেজনাপূর্ণ উত্তরই ছিল মশারি চলচ্চিত্রের বীজ'- বললেন নুহাশ। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ভিডিও স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম ভিমিওতে দেখা যাচ্ছে চলচ্চিত্রটি। দেশের দর্শকরা ফ্রিতে দেখছেন এটি। চলচ্চিত্রটিতে বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কথা বলতে চেয়েছেন নুহাশ। এটি দেখে তেমনটাই বলছেন দর্শকরা। ২২ মিনিটের এ চলচ্চিত্রটিতে উঠে এসেছে পৃথিবী ধ্বংসের শেষপ্রান্তে জনমানব শূন্য দুই বোনের গল্প। দেখা যায়, রক্তপিপাসু মশায় ভরে গেছে বিশ্ব। দুই বোন অজানা আতঙ্কে মশারির নিচে রাত পার করছে। গল্প লেখা, পরিচালনা ও প্রযোজনার পাশাপাশি সম্পাদনাও করেছেন নুহাশ হুমায়ূন। এতে দুই বোনের চরিত্রে অভিনয় করেছেন- জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অভিনেত্রী সুনেরাহ্‌ বিনতে কামাল ও অনেরা [হুমায়ূন আহমেদের নাতনি ও নুহাশের ভাগনি]। সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশের কনটেন্টকে আন্তর্জাতিক পরিসরে যেসব তরুণ নির্মাতা গর্বের সঙ্গে তুলে ধরছেন তাঁদের মধ্যে নুহাশ অন্যতম। 'হোটেল আলবাট্রোস', '৭০০ টাকা', 'পেট কাটা ষ' কাজ দিয়ে নিজের জাত চিনিয়েছেন তিনি। এ ছাড়াও আন্তর্জাতিক ওটিটি প্ল্যাটফর্ম 'হুলু'র কনটেন্ট 'ফরেনার্স অনলি' তাঁর ক্যারিয়ারে যোগ করেছে সফলতার নতুন পালক।