অনেকেরই কোলেস্টেরলের সমস্যা আছে।  শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়লে তা রক্তপ্রবাহের মধ্যে সঞ্চিত হয়। রক্তপ্রবাহকে সরু ও শক্ত করে ফেলে। রক্ত চলাচলে ব্যাঘাত ঘটে। এতে হৃদ্‌রোগ এবং স্ট্রোক হওয়ার আশঙ্কাও বেড়ে যায়।

বিশেষজ্ঞদের মতে, শরীরে কোলেস্টেরেলে মাত্রা কমাতে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনা জরুরি। বিশেষ করে চর্বিজাতীয় খাবার, চিপস্‌, ভাজাভুজি ধরনের খাবার এড়িয়ে চলা উচিত। সেই সঙ্গে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় কয়েকটি পানীয় যোগ করতে পারেন। এসব পানীয় কোলেস্টেরল কমিয়ে শরীর সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে। যেমন-

টমেটোর রস: টমেটোয় থাকা লাইকোপিন শরীরে লিপিডের মাত্রা বাড়াতে এবং লাইপোপ্রোটিনের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। রোজ আধ কাপ করে টমেটোর রস খেতে পারলে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।

কমলালেবুর রস: কমলালেবুর রস খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা প্রতি দিন দু’কাপ করে কমলালেবুর রস খান, তাদের কোলেস্টেরল হওয়ার আশঙ্কা খুবই কম। কমলালেবু শুধু কোলেস্টেরল নয়, হৃদ্‌রোগের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে।

বেরি স্মুদি: স্ট্রবেরি, ব্লুবেরি, ব্ল্যাকবেরির মতো ফলে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি-অক্সিড্যান্ট ও ফাইবার রয়েছে। কম ফ্যাট যুক্ত দুধের সঙ্গে বিভিন্ন প্রকার বেরি মিশিয়ে তৈরি করে নিন স্মুদি। সপ্তাহে তিনদিন এটি খেতে পারেন। এটি কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকবে।