ঢাকা বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

ঠান্ডা জ্বরের ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

ঠান্ডা জ্বরের ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয়

.

 ডা. আব্দুল্লাহ শাহরিয়ার

প্রকাশ: ২১ জানুয়ারি ২০২৪ | ২২:৫৪ | আপডেট: ৩০ জানুয়ারি ২০২৪ | ১৫:৪১

অনেক শিশুরই ঠান্ডা লাগার ধাত রয়েছে। এ সমস্যা নিয়ে মা-বাবা ভীষণ চিন্তিত থাকেন। কেউ এটিকে অ্যালার্জি বলেন, আবার অনেকে বলেন এটি নিছকই ভাইরাস। কিন্তু আসল ব্যাপারটি কী?

শিশুদের রোগব্যাধি নিয়ে হেলাফেলা করা যাবে না। শীত-বসন্তের সন্ধিক্ষণে যে ভাইরাসটি বলা যায় আমাদের মধ্যে এক ধরনের রাজত্ব কায়েম করে, তার নাম শ্বাসতন্ত্রের সিনসাইটিয়াল ভাইরাস। এ জন্য চিকিৎসকরা এ সময়ে মা-বাবা বা অভিভাবকদের শিশুর দিকে বাড়তি নজর দেওয়ার কথা বলে থাকেন।

রেসপিরেটরি সিনসাইটিয়াল ভাইরাস শ্বাসতন্ত্রের অন্যান্য ভাইরাসের মতো সংক্রামক। আরএসভি একটি প্যারামিক্সো ভাইরাস, যা শ্বাসতন্ত্রের রোগ সৃষ্টি করে। আর এ ভাইরাস ব্রঙ্কিওলাইটিস ও নিউমোনিয়ার অন্যতম কারণ। বিশ্বের বেশ কিছু দেশে চিকিৎসকরা গবেষণা করে দেখেছেন, আরএসভির ব্যাপ্তি বাড়ছে। স্কুল, বাজারঘাটের ঘনবসতিপূর্ণ পরিবেশ এ রোগ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে ভূমিকা পালন করে থাকে। ফ্লু বা ঠান্ডার উপসর্গ মনে হলেও এক বছরের কম বয়সী শিশুদের ব্রঙ্কিওলাইটিস ও নিউমোনিয়ার কারণ হতে পারে এ ভাইরাস। আরএসভির অন্যান্য লক্ষণ হলো ক্ষুধা কমে যাওয়া, জ্বর, নাক বন্ধ, কাশি এবং নাক দিয়ে পানি পড়া। ভাইরাসটি কাশি, হাঁচি, আপনার মুখ, নাক বা চোখের স্পর্শের মাধ্যমেও ছড়িয়ে পড়তে পারে। যদি আপনার সন্তানের শ্বাস নিতে অসুবিধা হয় অথবা পর্যাপ্ত তরল না পান করে, তবে আপনাকে অবশ্যই ডাক্তারের শরণাপন্ন হতে হবে।

আরএসভির সংক্রমণ যেভাবে প্রতিরোধ করা যায় আরএসভির জন্য কোনো টিকা নেই। তবে কিছু সুষ্ঠু রোগ ব্যবস্থাপনা, স্বাস্থ্য অভ্যাস, সর্বোপরি স্বাস্থ্য সতর্কতা আপনার সন্তানকে এ ধরনের ভাইরাস সংক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে। আপনার সন্তান নিয়মিত হাত ধুচ্ছে কিনা, তা নিশ্চিত করুন। জ্বর বা ঠান্ডা লেগেছে এমন মানুষের কাছ থেকে সন্তানকে দূরে রাখুন। সদ্যোজাত থেকে দুই মাস বয়সী শিশুদের অতিরিক্ত সুরক্ষা দেওয়া আবশ্যক। ছয় মাসের কম বয়সী শিশুদের নিয়মিত বুকের দুধ পান করালে এ রোগ সংক্রমণের হার কমে আসে। শিশু রোগাক্রান্ত হলে তাকে বিশ্রাম দিন, স্কুলে পাঠানো উচিত নয়। এ ছাড়া আপনার সন্তানের খেলনা এবং পরিধেয় সব সময় পরিষ্কার রাখবেন।

লেখক : অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, শিশু বিভাগ, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল।

আরও পড়ুন

×