করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সাবেক অর্থমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিতের শারীরিক অবস্থার অনেকটাই উন্নতি হয়েছে। তিনি স্বাভাবিকভাবে খাওয়া-দাওয়া ও কথাবার্তা বলতে পারছেন। তবে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন প্রবীণ এই নেতার দ্বিতীয় দফা পরীক্ষায়ও করোনা পজিটিভ এসেছে।

মুহিতের ছোট ভাই ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বুধবার রাতে এসব তথ্য জানিয়েছেন। সমকালকে তিনি আরও বলেন, সাবেক এই অর্থমন্ত্রীর শারীরিক অবস্থা আগের চেয়ে ভালো। তবে মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফা করোনা পরীক্ষা করালে ফল পজিটিভ এসেছে।

৮৭ বছর বয়সী মুহিতের নমুনা পরীক্ষায় গত ২৪ জুলাই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর থেকে রাজধানীর বনানীর বাড়িতে আইসোলেশনে ছিলেন তিনি। এই অবস্থায় ২৮ জুলাই বিকেলে তাকে সিএমএইচে ভর্তি করা হয়। তার তেমন শারীরিক জটিলতা না থাকলেও শ্বাসকষ্টজনিত জটিলতার শঙ্কা এড়াতে তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জানান স্বজনরা।

এর আগে মুহিতের বাসার একজন গৃহকর্মীর করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। এরপর বাসার সবার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। নমুনা পরীক্ষায় আবুল মাল আবদুল মুহিতের পাশাপাশি তার ছেলে শাহেদ মুহিতের শরীরেরও করোনা শনাক্ত হয়। শাহেদ এখন বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। মুহিত ইতোমধ্যে করোনা টিকার দুটি ডোজই নিয়েছিলেন।

আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনের পর রাজনীতি থেকে অবসর নেন। তিনি এ পর্যন্ত ১২টি বাজেট উপস্থাপন করেন, যার মধ্যে ১০টি আওয়ামী লীগ সরকার আমলের।