চট্টগ্রামে থানার ওসি পরিচয়ে ব্যবসায়ীর কাছ থেকে দুই লাখটাকা চাঁদা দাবির অভিযোগে দুই ভাইসহ তিন যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নগরের বাকলিয়া থানা ও আকবরশাহ থানা এলাকা থেকে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে রোববার সন্ধ্যায় জানানো হয়। 

গ্রেপ্তার তিনজন হলেন-মিরসরাই উপজেলার মগাদিয়া গ্রামের মো. আজিম হোসেন ইমন, জোরারগঞ্জ থানার রগুনাথপুর গ্রামের মো. আরিফ হোসেন ও তার ছোট ভাই মো. তারেক।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ১৫ সেপ্টেম্বর নগরের আসাদগঞ্জের ব্যবসায়ী মো. লুৎফর রহমানের কাছে কোতোয়ালী থানার ওসি পরিচয়ে ফোন করে ইমন। কোতোয়ালী থানায় ব্যবসা করতে হলে তাকে দুই লাখ টাকা চাঁদা দিতে হবে বলে জানান। লুৎফর রহমান টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মেরে ফেলার হুমকি দেয় ইমন। পরে তার নগদ নাম্বারে দেড় হাজার টাকা পাঠান ওই ব্যবসায়ী। পরদিন আবারো ফোন করে চাঁদা দাবি করলে বিষয়টি টহল পুলিশকে জানায় লুৎফর রহমান।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নেজাম উদ্দীন জানান, চাঁদা দাবি করা নাম্বারগুলো সংগ্রহ করে আসামিদের শনাক্ত করা হয়। পরে অভিযান চালিয়ে নগরের বাকলিয়া ময়দার মোড় এলাকা থেকে ইমন ও মো. আরিফকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের দেয়া তথ্য অনুযায়ী আকবরশাহ থানার শাপলা আবাসিক এলাকা থেকে মো. তারেককে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন।

তিনি জানান, আসামিরা সেবা প্রার্থী সেজে নগরের বিভিন্ন থানায় যায়। সেখান থেকে ওসিসহ পুলিশ অফিসারদের নাম ও নম্বার সংগ্রহ করে। কোন ঘটনা ঘটার খবর পেলে বাদী ও বিবাদীদের পুলিশ অফিসার পরিচয়ে ফোন দিয়ে টাকা দাবি করে। অনেকে ভয়ে টাকা দিয়ে দেয়। অনেকে আবার মোবাইল বন্ধ করে রাখে। থানায় কেউ অভিযোগ নিয়ে না আসায় দীর্ঘদিন ধরে এভাবে চাঁদা আদায় করে আসছিল তারা। সম্প্রতি সমীর চৌধুরী নামে এক ব্যক্তিকে ভুয়া একটি মামলার রেফারেন্সে ফোন দিয়ে থানায় আসতে বলে। খরচ হিসেবে তার কাছ থেকে পাঁচ হাজার টাকা দাবি করে তারা।