অবশেষে তিনদিন পর ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে শান্তিতে নোবেল বিজয়ী সাংবাদিক মারিয়া রেসাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে। সোমবার দেশটির প্রেসিডেন্ট অফিসের নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এই শুভেচ্ছা জানানো হয়। 

মারিয়া রেসা প্রথম ফিলিপাইনি যিনি এই সম্মানে ভূষিত হলেন। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় কাজ করার স্বীকৃতিস্বরূপ রুশ সাংবাদিক দিমিত্রি মুরাতভের সঙ্গে যৌথভাবে এই নোবেলে পেয়েছেন রেসা। খবর আল-জাজিরার’র।

সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র হ্যারি রোক বলেন, এই পুরস্কার ফিলিপাইনের জয় এবং এর জন্য আমরা খুব খুশি (উই আর ভেরি হ্যাপি ফর দ্যাট)। আর এই শুভেচ্ছাই রেসার নোবেল বিজয়ে প্রেসিডেন্ট এবং তার সমর্থকদের পক্ষ থেকে প্রথম কোনো প্রতিক্রিয়া। যদিও এই সংবাদ সম্মেলনেও রেসাকে সামনে বিচারের মুখোমুখি হতে হবে বলে জানানো হয়। রোক বলেন, এটা সত্য যে এখনো কিছু মানুষ মনে করেন রেসাকে আদালতের সামনে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে হবে। 

ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট দুতার্তে ও তার সরকারের নীতির কঠোর সমালোচনাকারী রেসা। বিশেষ করে দুতের্তের মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের। পুরস্কার বিজয়ী সাংবাদিক রেসা র‌্যাপলার নামের একটি ওয়েবসাইটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা, যেটি দুতের্তের বিতর্কিত মাদকবিরোধী অবস্থানের ওপর অনেক কাজ করেছে। হাজার হাজার লোক নিহত হয়েছে দুতের্তের ওই মাদকবিরোধী অভিযানে। র‌্যাপলারে দুতের্তের সমালোচনামূলক প্রতিবেদন প্রকাশ করে বেশকিছু মামলায় পড়েন রেসা। এছাড়া সামাজিক মাধ্যমে প্রেসিডেন্ট সমর্থকরা তাকে আক্রমণের লক্ষবস্তুতে পরিণত করেছিল। রেসা এবং র‌্যাপলার দেখিয়েছিল কিভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে প্রেসিডেন্ট সমর্থকরা ভুয়া খবর ছড়াতো এবং তাকে অপদস্ত করতো। ফেসবুকে র‌্যাপলারের সাড়ে চার মিলিয়ন ফলোয়ার আছে এবং এটি ফিলিপাইনে দুতের্তে ও তার নীতির প্রকাশ্য সমালোচক সংবাদ মাধ্যমের একটি।

উল্লেখ্য, শুক্রবার ফিলিপাইনের নিউজ ওয়েবসাইট র‌্যাপলার-এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা মারিয়া রেসা ও রুশ সাংবাদিক দিমিত্রি মুরাতভ মতপ্রকাশের স্বাধীনতা রক্ষায় কাজ করার স্বীকৃতি হিসেবে যৌথভাবে নোবেল শান্তি পুরস্কারে ভূষিত হন।