নিউইয়র্কে হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্মেলন-২০২১ অনুষ্ঠিত হয়েছে।‌ রোববার সন্ধ্যায় লাগোর্ডিয়া ম্যারিয়ট হোটেলের বলরুমে চতুর্থবারের এই আয়োজন করে শো টাইম মিউজিক।

কথাসাহিত্যিক ও শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। সম্মেলনের আহ্বায়ক ডা. চৌধুরী সারোয়ার হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন লেখক ও সাংবাদিক শামীম আল আমিন।

অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে বক্তব্য রাখেন ও সঙ্গীত পরিবেশন করেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের দুই কণ্ঠযোদ্ধা রথীন্দ্রনাথ রায়, শহীদ হাসান এবং অভিনেত্রী ও হুমায়ূন আহমেদের দ্বিতীয় স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। বক্তৃতা করেন লেখক ও প্রকাশক মাজহারুল ইসলাম ও সাংবাদিক জ ই মামুন। 

বিজয়ের মাসের এই আয়োজনে হুমায়ূন আহমেদ নির্মিত 'আগুনের পরশমণি' চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হয়। দেখানো হয় হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে নির্মিত শামীম আল আমিন পরিচালিত একটি তথ্যচিত্র। অনুষ্ঠানে ছিল কবিতা পাঠ ও দলীয় নৃত্য। হুমায়ূন আহমেদ ও তাকে নিয়ে লেখা ৫০টি বই নিয়ে  ছিল ২টি বইয়ের স্টল। আগামীবার আরো বড় পরিসরে আয়োজন হবে বলে জানান আয়োজক শো টাইম মিউজিকের কর্ণধার আলমগীর খান আলম। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী হুমায়ূন আহমেদ যেখানেই হাত দিয়েছেন, সেখানেই সোনা ফলিয়েছেন। নন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের সৃষ্টিকর্মকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে পৌঁছে দেওয়ার জন্য আরো কাজ হওয়া প্রয়োজন। 

মেহের আফরোজ শাওন বলেন, পৃথিবীর যে প্রান্তেই হুমায়ূন আহমেদের নাম উচ্চারিত হোক আমার ভালো লাগে। নিউইয়র্ক আমার কাছে মিশ্র অনুভূতির নাম। এই শহরে মারা যান হুমায়ূন আহমেদ। তাই এখানে তাকে নিয়ে যত ছোট পরিসরেই আয়োজন হোক, এতে যুক্ত থাকতে পারাটাই আমার জন্য বড় পাওয়া।  

মাজহারুল ইসলাম বলেন, নতুন পাঠক সৃষ্টির ক্ষেত্রে হুমায়ূন আহমেদের অবদান অসামান্য। বিশেষ করে একুশের বইমেলা হুমায়ূন আহমেদ একাই জমিয়ে রাখতেন। তার কাজকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরার জন্য এ ধরনের উদ্যোগ দেশে দেশে নিতে হবে।  

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন এই আয়োজনের সদস্য সচিব ইশতিয়াক রুপু, যুগ্ম আহ্বায়ক কবি রওশন হাসান, যুগ্ম সদস্য সচিব লুৎফুর রহমান। কবি ফকির ইলিয়াস, সাংবাদিক ইব্রাহীম চৌধুরী, লেখক ফরহাদ হোসেন ও মিশুক সেলিম। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন শাহ মাহবুব, কৃষ্ণা তিথি, কামরুজ্জামান বকুল এবং মরিয়ম মারিয়া।