জাপানে বারগান্ডি সিডার কাঠের ফ্রেমের ৭০০ এবড়োখেবড়ো জানালা, পাহাড়ের চূড়া এবং চিরহরিৎ গাছের ঘূর্ণায়মান গ্রোভের পটভূমিতে কাচের প্যানের একটি ভবন অনেকের নজর কেড়েছে। কামিকাটসু 'শূন্য বর্জ্য' কেন্দ্রের সম্মুখভাগটি এভাবে কার্যত ফেলে দেওয়া আবর্জনা থেকে তৈরি করা হয়েছে। দক্ষিণ জাপানের কাতসুরা নদীতীরে অবস্থিত পাহাড়ি শহর কামিকাতসুতে এটি অবস্থিত। কেন্দ্রটি ২০২০ সালে কভিড-১৯ মহামারির মধ্যে খোলা হয় এবং স্থানীয় সম্প্রদায়ের জন্য নতুন প্রাণকেন্দ্র হয়ে ওঠে।

শতভাগ শূন্য বর্জ্য অর্জনের শহরের উচ্চাভিলাষী লক্ষ্যে সহায়তা করার জন্য নতুন কেন্দ্রটি নির্মাণ করা হয় বলে প্রকল্পের প্রধান স্থপতি হিরোশি নাকামুরা বলেছেন। ভবনটি গত বছর জাপানের আর্কিটেকচারাল ইনস্টিটিউটের পুরস্কার অর্জন করে। এ শহরের জনসংখ্যা ক্রমেই কমছে। নতুন আকর্ষণীয় ভবনটি পরিবেশ-সচেতন বাসিন্দাদের আকৃষ্ট করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

নাকামুরা বলেন, আমরা কেন্দ্রটিকে এমন ভবন হিসেবে তৈরি করতে চেয়েছিলাম যা নিয়ে বাসিন্দারা গর্ব করতে পারে। নাকামুরা এবং তার দল ২০১৬ সালের এপ্রিলে কামিকাতসুর বাসিন্দাদের সঙ্গে পরামর্শ করে শূন্য বর্জ্য কেন্দ্রের নকশা করা শুরু করে। তারা এতে মূলত স্থানীয় এবং পুনর্ব্যবহূত উপকরণ ব্যবহার করেছেন। এর বসতিগুলো দেবদারু আচ্ছাদিত পর্বত ঢালের উপত্যকায় গড়ে উঠেছে। সূত্র :সিএনএন।