সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির (বার) সম্পাদকের পদ নিয়ে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের বিক্ষোভের সময় সরকার সমর্থক আইনজীবীদের সঙ্গে হাতাহাতি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার সমিতির সম্পাদকের কক্ষের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা বিক্ষোভ চলাকালে সুপ্রিম কোর্ট বার সম্পাদকের নেমপ্লেট ভাঙচুর করেন। এতে বাধা দিলে সরকার সমর্থক আইনজীবীদেরর সঙ্গে ভাঙচুরকারীদের হাতাহাতি ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় সরকার সমর্থক কয়েকজন আইনজীবী আহত হয়েছেন। পাল্টা প্রতিরোধের মুখে বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা ‘স্লোগান’ দিয়ে এলাকা থেকে চলে যান। পরে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা সম্পাদকের কক্ষের সামনে অবস্থান নেন।

এর আগে দুপুর ২টার দিকে ‘অবৈধভাবে সম্পাদকের পদ দখল করে সুপ্রিম কোর্ট বারের ঐতিহ্যকে কলঙ্কিত করার’ প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন শতাধিক বিএনপি সমর্থক আইনজীবী।

প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সদস্য সচিব ফজলুর রহমান বলেন, মানুষের শেষ ভরসাস্থল সুপ্রিম কোর্টে ভোট ডাকাতি করা হয়েছে। আইনজীবী ফোরাম সুপ্রিম কোর্ট ইউনিটের সভাপতি আবদুল জব্বার ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক গাজী কামরুল ইসলাম সজলের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মীর মোহাম্মদ নাছির উদ্দিন, বিএনপির আইন সম্পাদক ব্যারিস্টার কায়সার কামাল, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, ট্রেজারার মো. কামাল হোসেন, সহ-সম্পাদক মাহবুবুর রহমান খান।

গত ১৫ ও ১৬ মার্চ সুপ্রিম কোর্ট বার নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হয়। সম্পাদক পদের ভোট পুনঃগণনা নিয়ে বিএনপি ও সরকার সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। এরমধ্যে ২৭ এপ্রিল ভোট পুনঃগণনা করে সরকার সমর্থক আইনজীবী আব্দুন নুর দুলালকে সম্পাদক হিসেবে বিজয়ী ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এ দিনও বিএনপি সমর্থক আইনজীবীদের সঙ্গে সরকার সমর্থক আইনজীবীদের হাতাহাতি ও হৈ হট্টগোলের ঘটনা ঘটেছিল। এরই ধারাবাহিকতায় সম্পাদক পদের ফলাফল নিয়ে প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেন বিএনপি সমর্থক আইনজীবীরা।