কোভিড-১৯ মহামারি এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে উন্নয়নশীল দেশগুলোর খাদ্য ও জ্বালানি সংকটের পাশাপাশি আর্থিক ও বাণিজ্যিক চ্যালেঞ্জ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের (ডব্লিউইএফ) নির্বাহী চেয়ারম্যান অধ্যাপক ক্লাউস শোয়াব সৌজন্য সাক্ষাৎ করলে প্রধারমন্ত্রী এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে হোটেল লোটে প্যালেসে স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যায় সাক্ষাৎ করেন তারা।

বার্তা সংস্থা বাসসের প্রতিবেদনে জানানো হয়, বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার পাশাপাশি তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা এবং বাণিজ্য সম্প্রসারণে বাংলাদেশ ও ডব্লিউইএফের মধ্যে সহযোগিতা ভবিষ্যতে বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা।

ওই সময় আগামী জানুয়ারিতে দাভোসে অনুষ্ঠেয় ডব্লিউইএফ সম্মেলনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান অধ্যাপক শোয়াব।

এ ছাড়াও জাতিসংঘ সদরদপ্তরের দ্বিপক্ষীয় বুথে স্লোভেনিয়ার প্রেসিডেন্ট বোরুত পাহোরের সঙ্গে বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৈঠকে বাংলাদেশ ও স্লোভেনিয়ার মধ্যে সহযোগিতা সংক্রান্ত বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। এরপর ইকুয়েডরের প্রেসিডেন্ট গুইলারমো লাসোর সঙ্গেও প্রধানমন্ত্রীর আরেকটি বৈঠক হয়।

দুই নেতা বাংলাদেশ ও ইকুয়েডরের মধ্যে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা করেন।

অন্যদিকে স্বল্পোন্নত দেশ, ল্যান্ডলকড ডেভেলপিং কান্ট্রিস অ্যান্ড স্মল আইল্যান্ড ডেভেলপিং স্টেটসের (ইউএন-ওএইচআরএলএলএস) হাই রিপ্রেজেন্টেটিভের কার্যালয়ে জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল রাবাব ফাতিমাও সাক্ষাৎ করেন প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে।

বৈশ্বিক সংকটে এলডিসি এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোর সহায়তায় আন্তর্জাতিক আর্থিক প্রতষ্ঠানগুলো যাতে কঠোর শর্ত আরোপ না করে, সে জন্য ওএইচআরএলএলএস আরও সক্রিয় ভূমিকা পালন করবে বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।

২০২৩ সালের মার্চে দোহায় অনুষ্ঠেয় এলডিসি-৫ সম্মেলনে অংশগ্রহণে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান রাবাব ফাতিমা।

মেটার গ্লোবাল অ্যাফেয়ার্স প্রেসিডেন্ট নিক ক্লেগ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার হোটেলের দ্বিপক্ষীয় বৈঠক কক্ষে সাক্ষাৎ করেন।

বৈঠকে তথ্যপ্রযুক্তিতে বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য সাফল্যের কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। ওই সময় এ খাতে বাংলাদেশ ও মেটার মধ্যে সহযোগিতার সম্ভাব্য দিক নিয়ে আলোচনা হয়।

ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে বর্তমান সরকারের সাফল্যের প্রশংসা করে নিক ক্লেগ ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যবসার চলমান উন্নয়নে পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাস দেন।