ফের ক্ষমতায় বসছে বিজেপি

প্রকাশ: ২৩ মে ২০১৯     আপডেট: ২৪ মে ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ছবি: রয়টার্স

অর্থনৈতিক দুরবস্থা, কৃষকের সংকট ও বেকার সমস্যা 'মোদির জয়রথ' থামিয়ে দিতে পারে বলে অনুমান করেছিলেন অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক। কিন্তু বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত প্রাথমিক ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, 'মোদি ঝড়ে' সেসব দুমড়েমুচড়ে গেছে। 

ভারতে লোকসভা নির্বাচনে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় শুরু হয় ভোট গণনা। এখন পর্যন্ত প্রকাশিত ফলাফলে বিপুল ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে নরেন্দ্র মোদির ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। লোকসভার ৫৪২টি আসনের মধ্যে ৩৪৯টি আসনে এগিয়ে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্বাধীন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক অ্যালায়েন্স (এনডিএ)। কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউনাইটেড প্রগ্রেসিভ অ্যালায়েন্স (ইউপিএ) এগিয়ে রয়েছে ৯২টিতে এবং অন্যান্য দল এগিয়ে ১০১টি আসনে। খবর এনটিভির

কোনো দলকে সরকার গঠন করতে হলে জয় দরকার ২৭২টি আসনে। ফলে ২০১৪ সালের মতো ফের বিপুল ব্যবধানে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন নরেন্দ্র মোদি।

নির্বাচনে বিজয় প্রায় নিশ্চিত হওয়ার পর নয়াদিল্লিতে বিজেপির দলীয় কার্যালয়ে দলের সভাপতি অমিত শাহের সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি— এএফপি

উত্তর প্রদেশের বিতর্কিত রাজনৈতিক পরিস্থিতির মধ্যে যেখানে সমাজবাদী পার্টি (এসপি) ও বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি) কঠিন চ্যালেঞ্জের সামনে ফেলার কথা ছিল বিজেপিকে, সেখানে বিজেপি ৮০টি আসনের মধ্যে ৬২ টিতে এগিয়ে। সম্মিলিতভাবে বিএসপি ও এসপি এগিয়ে আছে ১৭টি আসনে। আর কংগ্রেস এখানে একটিমাত্র আসনে এগিয়ে।

আমেথিতে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী বিজেপির স্মৃতি ইরানির কাছে পরাজয় মেনে নিয়েছেন।

'মোদি ঝড়' যে কেবল হিন্দিবলয় ও গুজরাটের মধ্যেই সীমাবদ্ধ তা নয়। পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, মহারাষ্ট্র এবং কর্নাটকেও মোদির জয়জয়কার দেখা যাচ্ছে। তবে শুধু কেরালা, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ ও তেলেঙ্গানায় মোদির বিজেপি পিছিয়ে।

নির্বাচনে বিজেপির বিজয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এক সংবাদ সম্মেলনে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, এই নির্বাচনে 'গণতন্ত্রের বিজয় হয়েছে'। এ সময় দেশবাসীকে অভিনন্দন জানিয়ে তিনি বলেন, 'আজ এই ভিখারির ঝোলা ভরে দিয়েছে দেশবাসী।'

নির্বাচনে বিজেপির বিজয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ায় উৎসবে মাতেন দলটির কর্মী-সমর্থকরা— এএফপি

অন্যদিকে পরাজয় মেনে নেওয়ার কথা জানিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি নির্বাচনে বিজয়ী নরেন্দ্র মোদি ও এনডিএ জোটকে অভিনন্দন জানান।

এদিকে ভারতের লোকসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে জয়ের পথে থাকায় দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে ফোন করে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এছাড়া নরেন্দ্র মোদিকে অভিনন্দন বার্তা পাঠিয়েছেন শ্রীলংকার প্রধানমন্ত্রী রনিল বিক্রমাসিংহেও। 

লোকসভার ৫৪৩টি আসনের মধ্যে এবার ভোট  হয়েছে ৫৪২টিতে। ভোট হয়নি শুধুমাত্র তামিলনাড়ু রাজ্যের ভেলর আসনে। অর্থিক লেনদেনের অভিযোগে আসনটিতে ভোট স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন শুরু হয় গত ১১ এপ্রিল। সাত দফায় ভোট শেষ হয় গত রোববার। এবার লোকসভা নির্বাচনে ৯০ কোটি ভোটারের মধ্যে প্রায় ৬০ কোটি ভোট দিয়েছেন বলে প্রাথমিকভাবে জানিয়েছে দেশটির নির্বাচন কমিশন।

নির্বাচনে দলের পরাজয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে যাওয়ার পর সংবাদ সম্মেলনে কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী— ছবি টুইটারের সৌজন্যে

সাত ধাপে অনুষ্ঠিত ভোটের পর গত রোববার ১৪টি বুথফেরত সমীক্ষা প্রকাশ করা হয়। এর ১২টিতেই বলা হয়, মোদির বিজেপি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে।

ভারতের নির্বাচনে এবার সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যাপক ব্যবহার হয়েছে। আর এতে এগিয়ে ছিলেন মোদি। সোশ্যাল মিডিয়ার কতটা দখল কার হাতে থাকছে, সেদিকে বিশেষ নজর রেখেছিল প্রায় সব রাজনৈতিক দলই। সাত দফার নির্বাচনে শুধু ভোটগ্রহণের দিনগুলোকে নিয়ে একটি সমীক্ষা করে নয়াদিল্লি ইন্দ্রপ্রস্থ ইনস্টিটিউট অব ইনফরমেশন টেকনোলজি। এতে দেখা যায়, শুধু ভোটের দিনগুলোতেই মোট ১৭ লাখ ৪০ হাজার টু্ইট করা হয়েছে। সেখান থেকেই বেছে নেওয়া হয়েছিল মোট ৮৬১টি হ্যাশট্যাগকে। দেখা যায়, সেই হ্যাশট্যাগের লড়াইয়ে এগিয়ে মোদি।

বিষয় : লোকসভা নির্বাচন ভারত নরেন্দ্র মোদি রাহুল গান্ধী কংগ্রেস