বিতর্কিত ভিডিও ফাঁসের ঘটনায় পাক বিচারককে অপসারণ

প্রকাশ: ১২ জুলাই ২০১৯     আপডেট: ১২ জুলাই ২০১৯      

অনলাইন ডেস্ক

ভিডিও থেকে নেওয়া স্ক্রিনশটে দেখা যাচ্ছে, পিএমএল-এন নেতা নাসির বাটের সঙ্গে কথা বলছেন বিচারক আরশাদ মালিক

পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে দোষী সাব্যস্ত করতে বাধ্য করার ভিডিও ফুটেজ ফাঁসের ঘটনায় বিচারক আরশাদ মালিককে অপসারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ইসলামাবাদ হাই কোর্ট। খবর দ্য ডনের। 

শুক্রবার ইসলামাবাদ হাই কোর্ট এ সিদ্ধান্ত নেন।

গত বছরের ডিসেম্বরে আল আজিজিয়া স্টিল দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ৭ বছরের জেল হয়। তখন থেকেই নওয়াজকে অন্যায়ভাবে শাস্তি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ। 

মরিয়মের দাবি, চাপ দিয়ে বিচার প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করে তার বাবাকে শাস্তি দেওয়া হয়েছে। 

নিজের অভিযোগ প্রমাণ করতে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন পাকিস্তানের প্রধান বিরোধী দল পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ’র (পিএমএল-এন) নেত্রী মরিয়ম নওয়াজ। 

এই ভিডিওতে পিএমএল-এন নেতা নাসির বাটকে ইসলামাবাদ আদালতের বিচারপতি আরশাদ মালিকের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায়। 

ভিডিও’র মাধ্যমে সামনে আসা তথ্য অনুযায়ী, নওয়াজ শরিফকে দুর্নীতি মামলায় দোষী সাব্যস্ত করতে বার বার হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে দাবি করেন মামলার বিচারপতি আরশাদ মালিক। তাই চাপের মুখে উপযুক্ত প্রমাণ ছাড়াই দুর্নীতি মামলায় পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রীকে দোষী সাব্যস্ত করতে বাধ্য হন তিনি।

তবে ভিডিওটি ‘ভুয়া’ জানিয়ে শুক্রবার বিচারপতি আরশাদ মালিক ইসলামাবাদ হাই কোর্টের ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি আমির ফারুক বরাবর একটি চিঠি দিয়েছেন।

তিনি জানিয়েছেন, যথাযথ প্রমাণের ভিত্তিতেই নওয়াজের শাস্তি ঘোষণা করা হয়েছে। এই মামলায় তার উপর কোনো চাপ ছিল না 

বিচারপতি ফারুক চিঠিটি গ্রহণ করেছেন। তবে ইসলামাবাদ হাই কোর্টের অধস্তন বিচার বিভাগের কর্মকর্তা হিসেবে তদন্ত না করেই বিচারক মালিককে মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

ইসলামাবাদ হাই কোর্ট থেকে বিচারক মালেককে অপসারণ করে লাহোর হাই কোর্টের অভিভাবক বিভাগে সংযুক্ত করার নির্দেশ দিয়ে আইন মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি লেখার জন্য রেজিস্ট্রার অফিসকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

আদালতের এই সিদ্ধান্তের পরপরই মরিয়ম তার বাবার বিরুদ্ধে আল আজিজিয়া দুর্নীতি মামলার রায় বাতিল ঘোষণার দাবি জানান। 

সেইসঙ্গে নওয়াজ-কন্যা মরিয়ম ইমরান খানের পদত্যাগ দাবি করেন।