প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে হংকংয়ে পৃথক করে রাখা একটি প্রমোদতরীর প্রায় দুই হাজার যাত্রীকে জাহাজ ছাড়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পাঁচদিন ধরে আটকে থাকা ওয়ার্ল্ড ড্রিম নামের ওই নৌযানটির যাত্রীদের শরীরে করোনার অস্তিত্ব না পাওয়ায় তাদের জাহাজ ছেড়ে বাড়ি ফেরার অনুমতি দেওয়া হয়।

রোববার বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্রুসহ তিন হাজার ৬০০ আরোহী ছিলেন ওই প্রমোদতরীতে। করোনা আক্রান্ত সন্দেহে গত বুধবার এটিকে পৃথক করে রাখা হয়।

হংকং বন্দরের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা লেং ইয়ায়ু-হং বলেন, পরীক্ষায় প্রমোদতরীতে থাকা এক হাজার ৮শ' জনের শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যায়নি। তাই তাদের পৃথক করে রাখার প্রয়োজন নেই।রোববার হংকংয়ের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, ৪৬৮ জনকে বাড়ি, হোটেল অথবা সরকার নিয়ন্ত্রিত কোনও কেন্দ্রে থাকতে বলা হয়েছে।

এদিকে জাপান উপকূলেও একটি প্রমোদতরীকে পৃথক করে রাখা হয়েছে। সেটিতে থাকা ৬০ জনের বেশির শরীরে করোনার অস্তিত্ব মিলেছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে প্রথমবারের মতো চীনের হুবেই প্রদেশের উহানে করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর চীনসহ প্রায় ২৫টির বেশি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এবং প্রাণহানি বাড়তে থাকায় এরই মধ্যে জরুরি অবস্থা জারি করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। প্রতিদিন বাড়ছে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত মৃতের সংখ্যা। তবে আশার খবর হলো এই ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তিরা সুস্থ বাড়িও ফিরছেন।