ইতালিতে চলাচলে আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশ: ২৫ মার্চ ২০২০     আপডেট: ২৫ মার্চ ২০২০   

ইউসুফ আলী, ইতালি থেকে

ইতালির ভেনিস শহরের প্রায় জনশূন্য একটি রাস্তা। ছবি: রয়টার্স

ইতালির ভেনিস শহরের প্রায় জনশূন্য একটি রাস্তা। ছবি: রয়টার্স

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে মৃত্যুপুরীতে পরিণত হওয়া ইতালির নাগরিকদের চলাচলের ওপর আরও কঠোর নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। বুধবার থেকে ঘোষণা করা নতুন নিয়মে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে গেলে জরিমানা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০০ ইউরো থেকে ৩ হাজার ইউরো। গাড়িসহ আইন লঙ্ঘনের ক্ষেত্রে শাস্তির বিধান তিনগুণ বৃদ্ধি করা হচ্ছে। এছাড়া করোনায় আক্রান্ত কোনো ব্যক্তি আইন লঙ্ঘনকারী হলে তাকে এক থেকে ৫ বছরের জেল দেওয়া হবে।

মঙ্গলবার মন্ত্রীদের নিয়ে দীর্ঘ আলোচনার পর ইতালির প্রধানমন্ত্রী জোসেপ্পে কন্তে সরকারের এ সিদ্ধান্তের কথা জানান। তিনি বলেন, যারা সরকার ঘোষিত আইন অমান্য করবে তারা উচ্চতর জরিমানার ঝুঁকিতে থাকবে। ইতালিয়ানরা একটি কঠিন পরীক্ষার মুখোমুখি। করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছে। জনগণের স্বাভাবিক চলাচল নিয়ন্ত্রণ করায় অনেকে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। কিন্তু এটি সবার কল্যাণের জন্য। 

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, জরিমানা নির্ধারণ নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। সর্বনিম্ন জরিমানা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০০ ইউরো এবং সর্বোচ্চ ৩ হাজার ইউরো। এর আগে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হলে ২০৬ ইউরো জরিমানার বিধান ছিল। গাড়িসহ কোনো ব্যক্তি জাতীয় অঞ্চল থেকে বিভাগীয় অঞ্চলে যাতায়েতের ক্ষেত্রে ঘোষিত আইনে তিনগুণ শাস্তি বাড়ানো হচ্ছে। আইন লঙ্ঘনকারী ব্যক্তি যদি করোনায় আক্রান্ত হন, তাহলে তার জন্য শাস্তি এক থেকে ৫ বছরের জেল।

বুধবার থেকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সরকার ঘোষিত এ নিয়ম কঠোরভাবে তদারকি করছে। আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে প্রয়োজনে সেনাবাহিনী ব্যবহারের সম্ভাবনার কথাও বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

সরকারের এই বিধিনিষেধ আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত চলবে- এমন আশঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে কন্তে বলেন, এটি একেবারেই সত্য নয়। জরুরি অবস্থা ৩১ জুলাই পর্যন্ত চলবে না। আশা করি, খুব শিগগিরই পরিস্থিতির উন্নতি হবে।