যুক্তরাজ্যে ব্যাপকভাবে করোনাভাইরাসের টিকার পরীক্ষা শুরু হবে আগামী সপ্তাহে। ইতিমধ্যে বিভিন্ন প্রাণীর উপরে কোভিড-১৯ টিকা প্রয়োগ করে আশার আলো দেখে বিজ্ঞানীরা মানবদেহে পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এর আগে চীন দুটি টিকা পরীক্ষার অনুমতি দেয়। খবর গার্ডিয়ান ও ডেইলি মেইলের।

সম্প্রতি অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদলের প্রধান অধ্যাপক অ্যাড্রিয়ান হিল গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন, প্রথম পর্যায়ে ১৮-৫৫ বছর বয়সী ৫১০ জন স্বেচ্ছাসেবী আগামী সপ্তাহে টিকা নিতে সম্মত হয়েছেন। অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীরা এই টিকার ব্যাপারে খুবই আশাবাদী। আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই এই টিকা নিয়ে লাখ লাখ মানুষ প্রাণঘাতী ভাইরাসটি থেকে রক্ষা পাবে বলে তাদের বিশ্বাস।

অধ্যাপক অ্যাড্রিয়ান হিল ও তার সহযোগী বিজ্ঞানীরা শিম্পাঞ্জির শরীরে সার্স কোভ-২ ভাইরাস ইঞ্জেকশন দিয়ে শিম্পাঞ্জির শরীরে ভাইরাসের বিরুদ্ধে অ্যান্টিবডি তৈরি করেন। এই অ্যান্টিবডিই টিকা হিসেবে মানুষের শরীরে দিলে কোভিড-১৯ ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ তৈরি হবে বলে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল নিশ্চিত হয়েছেন। ইতিমধ্যে প্রাণীদেহে এই টিকা ব্যবহার করে উল্লেখযোগ্য ফল মিলেছে। এবারে মানবদেহে পরীক্ষার পর এই টিকার কার্যকারিতা সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যাবে। অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের দল ভ্যাকসিনটির সাফল্যের ব্যাপারে অত্যন্ত আশাবাদী।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বিশ্বজুড়ে প্রায় ৭০টি করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিয়ে কাজ চলছে। অক্সফোর্ডের গবেষণা তার মধ্যে একটি।

গত সপ্তাহে অক্সফোর্ডের এই গবেষকদলের পক্ষে ভ্যাক্সিনোলজিস্ট সারা গিলবার্ট দাবি করেছিলেন, আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যেই তারা করোনাভাইরাসের টিকা আনতে সমর্থ হবেন।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক মার্ক লিপস্টিচ জানান, মহামারির বিপর্যয় প্রতিরোধ করতে টিকাটি দ্রুত বিশ্বের মানুষদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য তৃতীয় ধাপের সমীক্ষা কিছুটা কম করা যেতে পারে।