করোনার ‘সংক্রমণ ঠেকাতে’ অভিবাসীদের আটক করছে মালয়েশিয়া

প্রকাশ: ০৩ মে ২০২০     আপডেট: ০৩ মে ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ‘সংক্রমণ ঠেকাতে’ মালয়েশিয়ায় শত শত অবৈধ অভিবাসীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানিয়েছে বিবিসি।

মালয়েশিয়ার সরকারি সংবাদ মাধ্যমে দেশটির পুলিশ প্রধান আবদুল হামিদ বাদোর বলেন, ওই অবৈধ অভিবাসীরা যাতে বিভিন্ন জায়গায় ঘোরাঘুরি করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে না পারে, তাই তাদের আটক করা হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, রাজধানী কুয়ালালামপুরে অভিবাসীদের ধরতে অভিযানটি চালানো হয়। রাজধানীর কেন্দ্রীয় এলাকা থেকে আটক করা হয় ৫৮৬ জন অবৈধ অভিবাসীকে। এই অঞ্চলটিতে বহু অভিবাসী বসবাস করেন।

জাতিসংঘ মালয়েশিয়ার সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছে, আটক শিশু ও অসুস্থ ব্যক্তিদের যাতে ডিটেনশন ক্যাম্পে না নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। এ ছাড়া সরকারের এমন পদক্ষেপে ডিটেনশন ক্যাম্পেও করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছে জাতিসংঘ।

মানবাধিকার সংস্থাগুলো বলছে, আটককৃতদের মধ্যে মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অনেকে রয়েছেন।

বিশ্লেষকরা বলছেন, মালয়েশিয়া সরকারের এ ধরনের কার্যক্রমে সুরক্ষাহীন এসব অভিবাসী আত্মগোপনে যেতে বাধ্য হতে পারেন। তখন দেশটিতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকানো আরও কঠিন হয়ে পড়তে পারে।

হিউম্যান রাইটস ওয়াচসহ কয়েকটি মানবাধিকার সংস্থা সামাজিক যোগযোগমাধ্যমে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, শত শত মানুষকে একটি মাঠের মধ্যে বসিয়ে রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যে শারীরিক দূরত্ব নেই বললেই চলে। আর তাদের ঘিরে রেখেছে একদল সশস্ত্র নিরাপত্তা বাহিনী।

বিবিসি অবশ্য স্বাধীনভাবে সে ভিডিওটির সত্যতা যাচাই করতে পারেনি।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে মালয়েশিয়ায় আংশিক লকডাউন চলছে। দেশটিতে ছয় হাজারের বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ১০৩ জনের।