পাকিস্তানি পুলিশের হাতে ধৃত ‘জুয়াড়ি’ গাধাটি অবশেষে মুক্তি পেয়েছে। পাকিস্তানের আদালত গাধাটির পক্ষে জুয়াড়ি হওয়ার মতো কোনো যুক্তি খুঁজে না পাওয়ায় পুলিশ তাকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়েছে। তবে গাধার সঙ্গী আট জনের বিষয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়নি। দিন কয়েক আগে পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে রহিমইয়ার খান শহরের কাছে একটি এলাকায় গাধাটিকে টাকার বিনিময়ে দৌড়বাজিতে নামিয়েছিল তারা। বাজি চলার সময় পুলিশ তাদের আটক করে। একই সঙ্গে গাধাটিকেও থানায় নিয়ে যায়। খবর বিবিসির।

গাধাটিকে নিয়ে যে বাজি ধরা হয়েছিল, সেটা ছিল একটা নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে একটা নির্দিষ্ট দূরত্ব অতিক্রম করার। বলা হয়েছিল, গাধাটি ৪০ সেকেন্ডে ৬০০ মিটার দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে। এতে টাকা-পয়সা লেনদেনের বিষয় থাকায় পুলিশ একে জুয়া হিসেবে গণ্য করে এবং গাধাসহ লোকগুলোকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তারা গাধাটিকে ছেড়ে না দিয়ে বরং তার ওপর আইনি জটিলতা চাপিয়ে দেয়। 

থানার সামনে বেঁধে গাধাটির ছবি ও খবর সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়লে সংবাদ মাধ্যমগুলো একে মজার খবর হিসেবে লুফে নেয়। পুলিশ অবশ্য জানিয়েছিল, গাধাটিকে কেবল চারদিনের জন্য থানার সামনে রাখা হয়েছিল।

পাকিস্তানের গ্রামাঞ্চলে গাধাকে বোঝা টানার কাজে ব্যবহার করা হয় এবং ঘোড়দৌড়ের মতো বাজি রেখে মাঝে মাঝে গাধাদৌড়েরও আয়োজন করা হয়।