ভারতের কেরালার একটি উপকূলীয় গ্রামে বাড়ছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। কোনোরকম স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করেই বাসিন্দারা যে যার মতো করে ঘর থেকে বের হচ্ছে।এই পরিস্থিতিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি রুখতে চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিল কেরালার সরকার ৷ করোনা রুখতে নামানো হলো কমান্ডো বাহিনী ৷

জিনিউজের প্রতিবেদন বলছে,  পুনথুরায় জোরকদমে করোনা পরীক্ষার পাশাপাশি মোতায়েন করা হয়েছে ২৫ জনের কমান্ডোর একটি দল ৷ গোটা গ্রাম এখন তাদের নজরদারিতে ৷ অপ্রয়োজনে বাড়ির বাইরে বেরলে ও করোনা বিধি না মানলেই ঘাড় ধরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে কোয়ারেন্টাইনে ৷ 

কমান্ডো মোতায়েনের আগেই গ্রামবাসীদের সতর্ক করে মাইকিংও করা হয় ৷ অপ্রয়োজনীয় কারণে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ঘোরাঘুরি করলেই তুলে নিয়ে যাবে কম্যান্ডো ৷

বিজয়ন সরকারের তরফে জানানো হয়েছে, গত ৫ দিনে প্রায় ৬০০ জনের করোনা পরীক্ষা হয়েছে এই গ্রামে। যার মধ্যে ১১৯ জনের পজিটিভ এসেছে। পুনথুরা গ্রামে বেশ কয়েকজন করোনা সুপার স্প্রেডার রয়েছেন বলে অনুমান ৷ কোনও এক ব্যক্তির থেকে ৬ জন বা তার বেশি লোক করোনা আক্রান্ত হলেই তাকে ‘সুপার স্প্রেডার’ বলা হয় ৷ এই গ্রামের অধিকাংশের জীবিকা মাছ ধরা ৷

জানা গেছে, মৎসজীবীদের এই গ্রামে প্রথম একজন মাছ ব্যবসায়ীর থেকেই করোনা ছড়িয়ে পড়ে ৷ আপাতত এই গ্রাম থেকে তামিলনাড়ুতে মাছ ধরতে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে ৷ এমনকী বাইরে থেকে নৌকা নিয়েও কেরালায় ফিরে আসা যাবে না বলে জানিয়েছে রাজ্য সরকার ৷ 

একইসঙ্গে গোটা গ্রাম সিল করে দেওয়ার পাশাপাশি বাসিন্দাদের যাতে প্রতিদিনের খাবার পেতে অসুবিধা না হয়, তার জন্য বাড়ি বাড়ি ৫ কেজি করে চালও পাঠিয়েছে রাজ্য সরকার৷