করোনার ভয়ে অনুষ্ঠান থেকে সরে গেলেন উমা

প্রকাশ: ০৩ আগস্ট ২০২০     আপডেট: ০৩ আগস্ট ২০২০   

অনলাইন ডেস্ক

উমা ভারতী

উমা ভারতী

অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে বিশাল তোড় জোর চলছে। ৫ আগস্ট ভূমিপূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে মন্দির নির্মাণের আনুষ্ঠানিকতা। সারা ভারতের বিজেপি নেতা-কর্মীরা দলে দলে জুটেছেন অযোধ্যায়। অনুষ্ঠানের তিনদিন আগে যুদ্ধকালীন প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে অযোধ্যায়। করোনা বিধি মানার জন্য বারবার অনুরোধ করা হয়েছে এলাকাবাসীকে। কিন্তু এরই মধ্যে ৫ আগস্ট শিলান্যাস অনুষ্ঠানে অভ্যাগতদের তালিকা থেকে নিজের নাম বাদ দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর অফিস এবং রামজন্মভূমির সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়েছেন বিজেপি নেত্রী উমা ভারতী।

টুইটারে লিখেছেন, করোনা আবহে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ যারা এই মেগা ইভেন্টে উপস্থিত থাকতে চলেছেন, তাদের স্বাস্থ্য নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের স্বাস্থ্য নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি। খবর এনডিটিভির

সোমবার সাবেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উমা ভারতীর ভোপাল থেকে অযোধ্যা যাওয়ার কথা ছিল। টুইটারে তিনি লিখেছেন, ওই জমায়েত থেকে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যায়। আমি তাই সব মিলিয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং অন্য সব অভ্যাগতদের কাছ থেকে দূরেই থাকব। আমি সরযূ নদীর ধারে থাকছি। অনুষ্ঠানপর্ব শেষ হলে আমি একান্তে রামলালার কাছে পূজা করব।

বুধবার অর্থাৎ ৫ আগস্ট সকাল ১১টার সময়ে নরেন্দ্র মোদি অযোধ্যায় পা রাখবেন। প্রথমেই যাবেন হনুমানমন্দিরে। তারপর তার যাওয়ার কথা মানসভবনে, যেখানে অস্থায়ী ভাবে রামমূ্র্তি রাখা আছে। তারপর তিনি উপস্থিত হবেন ভূমিপূজার মঞ্চে। সেখানে একটি ছোট মঞ্চ করা রয়েছে যেখান থেকে তিনি সাধুদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখবেন। একই মঞ্চে উপস্থিত থাকবেন সঙ্ঘপ্রধান মোহন ভগবত এবং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

অনুষ্ঠানের তিনদিন আগে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। করোনা বিধি মানার জন্য বারবার অনুরোধ করা হয়েছে এলাকাবাসীকে। উল্লেখ্য, দিন কয়েক আগেই রামমন্দিরের একজন পুরোহিত ও ১৬ জন পুলিশ অফিসার অযোধ্যায় করোনা আক্রান্ত হওয়ায় চাপা উদ্বেগ রয়েছে সব মহলেই।