ইরানের বিরুদ্ধে অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়াতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। ১১টি দেশ এই সংক্রান্ত ভোটে অংশগ্রহণ থেকে বিরত থেকেছে। প্রস্তাবের পক্ষে ও বিপক্ষে ভোট পড়েছে দু’টি করে। ফলে ইরানের বিরুদ্ধে উত্থাপিত যুক্তরাষ্ট্রের ১৩ বছরের নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাব চরমভাবে প্রত্যাখ্যাত হয়েছে।

ইরানের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এর মাধ্যমে প্রমাণ হলো, যুক্তরাষ্ট্র সারা বিশ্বে একা হয়ে পড়েছে। খবর আল জাজিরার।

করোনাভাইরাসের কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে শুক্রবার রাতে অনলাইনে নিরাপত্তা পরিষদের ওই বৈঠকে অনুষ্ঠিত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবের পক্ষে তাদের নিজেদের এবং ডোমিনিকান রিপাবলিকের ভোট পড়ে। বিপক্ষে ভোট দেয় রাশিয়া ও চীন। যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় এখন আগের পরমাণু সমঝোতার ভিত্তিতে চলতি বছরের অক্টোবর মাসে ইরানের ওপর জাতিসংঘের আরোপিত অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা উঠে যাবে। তবে নিরাপত্তা পরিষদে এমন বিপর্যয়ের পরও যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও এ সংক্রান্ত প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে জানান।

এর আগে, গত মঙ্গলবারই প্রস্তাবটি নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে ওঠার কথা ছিল। কিন্তু নিজেদের অবস্থান বুঝতে পেরে যুক্তরাষ্ট্র শেষ মুহূর্তে প্রস্তাব উত্থাপন থেকে বিরত ছিল। পরে ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা প্রস্তাবে কিছুটা নমনীয় ভাব গ্রহণ করলেও ভোটে যাওয়া থেকে পিছিয়ে যায়নি। শুক্রবার তাদের পরিশোধিত প্রস্তাবটিও চরমভাবে প্রত্যাখ্যাত হয়।

২০১৫ সালে ছয় বিশ্বশক্তির সঙ্গে ইরানের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতায় ২০২০ সালের অক্টোবর থেকে ইরানের বিপক্ষে সমর নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ২০১৮ সালে ট্রাম্প প্রশাসন ওই চুক্তি থেকে বেরিয়ে যায় এবং অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরও ১৩ বছর বাড়ানোর প্রস্তাব নিয়ে নিরাপত্তা পরিষদের দ্বারস্থ হয়। কিন্তু শুক্রবারের ভোটাভুটিতে হেরে যাওয়ায় ২০১৫ সালে সমঝোতা চুক্তি অনুযায়ী ইরানের ওপর থেকে চলতি বছরের অক্টোবরে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার হয়ে যাবে।

শুক্রবারের ভোটাভুটিতে উল্লসিত ইরান বলেছে, যুক্তরাষ্ট্র সারা বিশ্ব থেকে পৃথক হয়ে গেছে। তাদের কোনো বন্ধু নেই। এতটা নিসঙ্গ আর কখনও হয়নি তারা।

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মৌসুভি টুইটারে বলেন, ‘জাতিসংঘের গত ৭৫ বছরের ইতিহাসে যুক্তরাষ্ট্রকে এতটা ভঙ্গুর আর কখনও দেখা যায়নি। সারা পৃথিবীতে মাত্র ছোট্ট একটি দেশই তাদের অনুরোধে সাড়া দিয়েছে। আশা করছি, তারা এই বিপর্যয় থেকে শিক্ষা নেবে।’